শেরপুরের উত্তরা হাসপাতালের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার প্রতিকার চেয়ে ডিসির কাছে অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠন

শেরপুরে বেসরকারী হাসপাতাল উত্তরা স্পেশালাইজড হাসপাতালে রিনা বেগম নামে এক মহিলার ভুল চিকিৎসা করে শারীরিক ও আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার অভিযোগ তুলে জেলা প্রশাসকের কাছে এর প্রতিকার চেয়ে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রায় ৩ মাস পর ২৫ অক্টোবর তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা সিভিল সার্জন।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, শহরের চকপাঠক মহল্লার মৃত আক্তারুজ্জামানের স্ত্রী রিনা বেগম (৫৪) নামে এক মহিলা পেটের ব্যথা নিয়ে চলতি বছরের ১২ জুন শহরের সজবরখিলা মহল্লার উত্তরা স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি হন। ভর্তির পর তাকে হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার নায়লা হোসেন তার বেশ কিছু পরীক্ষা দেন পরীক্ষা শেষে ডাক্তার জানায় তার জরায়ুতে টিউমার ধরা পড়েছে। পরে তিনি কিছু দিন ওষুধ খেতে দেন। এরপর মাস খানিক পর পেটের ব্যথা ভালো না হওয়ায় আবারও সে ওই হাসপাতালে যান এবং ডাক্তারের পরামর্শে আরো কয়েকটি পরীক্ষা করান। এতে ডাক্তার নায়লা হোসেন জানায় টিউমারটি অনেক বড় হয়ে গেছে দ্রুত অপারেশ করাতে হবে। এ কথা শুনে মহিলার সন্দেহ হলে তিনি অন্য একটি ডাক্তারের  পরামর্শ নিয়ে বেশ কিছু পরীক্ষা করান। তখন ওই ডাক্তার জানায়, আপনার জরায়ু পরিক্ষার কোন টিউমার নেই, তবে পিত্ত থলিতে পাথর রয়েছে। একথা শুনে রিনা বেগম আরো নিশ্চিত হতে গত ২১ আগষ্ট জেলা সদর হাসপাতালে গিয়ে বেশ কিছু পরীক্ষা করে দেখেন তার জরায়ুতে কোন কিছু নেই তবে সামান্য ফোলা রয়েছে। এমতাবস্থায় রিনা বেগম দ্বিতীয় ডাক্তারের পরামর্শে যেসব ওষুধ খান তাতেই তিনি প্রায় সুস্থ হয়ে উঠেন।

পরে বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে গত সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এসময় তিনি বিষয়টি তদন্তের জন্য একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন করেন। পরে জেলা প্রশাসক জেলা সিভিল সার্জেনের কাছে তদন্ত কমিটি গঠনের জন্য চিঠি পাঠালে সিভিল সার্জন গত ২৫ অক্টোবর জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা (এরএমও) খাইরুল কবীরকে প্রধান করে এবং ডা. হাসিনাতুল ফেরদৌস লোপাকে সদস্য করে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ওই তদন্ত কমিটি ভুল চিকিৎসার অভিযোগে অভিযুক্ত ডা নায়লা হোসেনকে আগামী ২ নভেম্বর জেলা হাসপাতালে তদন্ত কমিটি’র কাছে তার বক্তব্য পেশ করতে বেলা ১১ টায় উপস্থিত হওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এবিষয়ে উত্তরা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক যোবায়ের রহমান বিপ্লব জানায়, ভুল চিকিৎসার বিষয়ে আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। এছাড়া ডিসির কাছে অভিযোগ দেয়ার বিষয়েও আমার জানা নাই।

ওই হাসপাতালের অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. নায়লা হোসেন জানায়, তদন্ত কমিটিতে যাবো, দেখি কী অভিযোগ এ বিষয়ে কাগজপত্র না দেখে কোন মন্তব্য করবো না।

তদন্ত কমিটি’র প্রধান সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. খাইরুল কবীর সুমন জানায়,  ভুক্তভোগি রোগির অভিযোগের প্রেক্ষিতে গঠিত তদন্ত কমিটি আগামী ২ নভেম্বর অভিযুক্তের কাছে বিস্তারিত জানা হবে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত বলা যাবে।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/এস.

  • 25
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ