জলবায়ু সম্মেলন ঘিরে সনাকের মানববন্ধনে নানা দাবী

কয়লাভিত্তিক জ্বলানি ব্যবহার বন্ধ ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি প্রসারের দাবিতে নীলফামারীতে মানববন্ধন করেছে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)। পাশাপাশি গ্লুবাল ক্লাইমেট ফান্ডসহ (জিসিএফ) জলবায়ু তহবিলে ঋণ কিংবা বীমা নয়, অভিযোজনকে অগ্রাধিকার দিয়ে অধিক কার্বন নিঃসরণকারী উন্নত রাষ্ট্রসমূহকে অনুদান হিসাবে ক্ষতিপুরণের টাকা প্রদানের দাবি জানায় সংস্হাটি।

চলমান জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলন-কপ ২৬ উপলক্ষে রবিবার সকাল এগারোটায় শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে ঘন্টাব্যাপী অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে এই দাবি জানানো হয়। সনাক নীলফামারী’র সভাপতি তাহমিনুল হক ববীর সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন সনাক সহসভাপতি জাহানারা রহমান ডেইজি ও মিজানুর রহমান লিটু, সনাক সদস্য প্রকৌশলী সফিকুল আলম ডাবলু, ইয়েস গ্রুপের দলনেতা মামুন আলম এবং ইয়েস ফ্রেন্ডস গ্রুপের দলনেতা আব্দুল কুদ্দুস।

মানববন্ধনে টিআইবি-সনাক এর পক্ষে জলবায়ু বিষয়ক নীতি নির্ধারণে জীবাশ্ম জ্বালানি কোম্পানিদের অনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করা, ২০৫০সালের মধ্যে ‘নেট জিরো’ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আইএনডিসিসহ প্রশমন বিষয়ক সকল কার্যক্রমে উন্নত দেশগুলোর স্ব”ছতা ও জাবাবদিহিতা নিশ্চিত করা, ২০৫০ সালের মধ্যে নবায়নযোগ্য উৎস থেকে শতভাগ জ্বালানি উৎপাদনে উন্নত দেশগুলোকে পর্যাপ্ত জলবায়ু তহবিল, প্রযুক্তি হস্তান্তর ও কারিগরি সহায়তা প্রদানে সিভিএফ এর পক্ষ থেকে সমন্বিতভাবে দাবি উত্থাপন করা, স্ব”ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে উন্নত দেশগুলোকে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন ডলার জলবায়ু তহবিল প্রদান করা, জিসিএফসহ জলবায়ু তহবিলে ঋণ নয়, অভিযোজনকে অগ্রাধিকার দিয়ে ক্ষতিপূরণের টাকা অনুদান হিসাবে প্রদান করা, দুর্যোগের ক্ষয়-ক্ষতি মোকাবিলায় একটি ক্ষয়-ক্ষতি বিষয়ক

আলাদা তহবিল গঠন করা, ক্ষয়-ক্ষতি নির্ধারণ এবং এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন স্ব”ছতার সাথে প্রস্ততে একটি গাইডলাইন তৈরি করা এবং ঝুঁকি বিনিময়ে বীমার পরিবর্তে অনুদানভিত্তিক ক্ষতিপূরণ প্রদান করা, জিসিএফ এর স্ব”ছতা, জবাবদিহিতা ও শুদ্ধাচার নিশ্চিত করে যথাসময়ে ও দ্রুততার সাথে প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড় করা এবং ক্ষতিগ্রস্হ’ দেশে অভিযোজন এবং প্রশমন বিষয়ক ৫০ঃ৫০ অনুপাত মেনে অর্থায়ন করার দাবি জানানো হয়।

ডেইলিরুপান্তর/আবির

  • 48
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ