বালিয়াডাঙ্গীতে আ.লীগের দলীয় আবেদন ফরম কিনতে হয়েছে ১০ হাজার টাকায়

চলমান ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে আবেদন ফরমের দাম নেওয়া হচ্ছে ১০ হাজার টাকা।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অভিযোগ, আবেদন ফরমের কোনো প্রয়োজন না থাকলেও নির্বাচনকে সামনে রেখে উপজেলা আওয়ামী লীগ আবেদন ফরমের বাণিজ্য করছে। কেন্দ্রীয় পর্যায়ে নাম পাঠাতে বাধ্য হয়ে তাঁদের ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে দলীয় আবেদন ফরম কিনতে হচ্ছে। এ জন্য অবশ্য রসিদও দেওয়া হচ্ছে না।

উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘১০ হাজার টাকায় আবেদন ফরম কিনেছি। কিন্তু এরপরও মনোনয়ন বোর্ডে আমার নাম পাঠানো হয়নি বলে জানতে পেরেছি।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী অভিযোগ করেন, আবেদন ফরমের জন্য টাকা না দিলে দলের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে সুপারিশ করা হবে না বলে হুমকি দেওয়া হয়েছে। আবেদন ফরমের টাকা না দিলে মনোনয়ন বোর্ডের কাছে তাঁদের নামে নেতিবাচক মন্তব্য জুড়ে দেওয়া হতে পারে। এমন আশঙ্কায় সবাই বাধ্য হয়ে আবেদন ফরম কিনেছেন।

নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৪ অক্টোবর তৃতীয় ধাপে ১ হাজার ৭টি ইউপিতে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এসব ইউপিতে আগামী ২৮ নভেম্বর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ২ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। মনোনয়নপত্র বাছাই ৪ নভেম্বর ও প্রত্যাহারের শেষ দিন ১১ নভেম্বর।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জেলা আওয়ামী লীগ কমিটিকে প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে তিনজন দলীয় আগ্রহী প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই নির্দেশনা পেয়ে বর্ধিত সভা করে আগ্রহী চেয়ারম্যান প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদন আহ্বান করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামী লীগ। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাতের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে ১৫ অক্টোবর থেকে ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে আবেদন ফরম বিতরণ শুরু হয়। ফরম জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ১৭ অক্টোবর।

উপজেলার আটটি ইউনিয়নের ৪৮ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী দলের আবেদন ফরম সংগ্রহ করেন। শেষ পর্যন্ত ৪৭টি ফরম জমা পড়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত বলেন, দীর্ঘদিন থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের কোনো কার্যালয় নেই। কার্যালয় নির্মাণের খরচ সংগ্রহ করতে উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে পরামর্শ করে ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন আবেদন ফরমের দাম ১০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এটা আবেদন ফরম বাণিজ্যে বলে অভিহিত করলে ভুল হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, কেন্দ্র থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে আবেদন ফরম বিতরণের বিপরীতে টাকা নেওয়ার কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। এটা স্থানীয়ভাবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার রায় বলেন, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে আবেদন ফরমের জন্য টাকা নেওয়ার বিষয়টি তাঁর জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/এ.

  • 38
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ