পোকার আক্রমণে মরে যাচ্ছে ধান গাছ

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আগাম জাতের আমনখেতে নানান পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানির কীটনাশক স্প্রে করেও দমন না হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চাষিরা।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ৮ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার আমন খেতে মাজরা, কারেন্ট, পাতামোড়ানো পোকার আক্রমণে অনেক খেতের চার ভাগের এক ভাগ নষ্ট হয়ে গেছে। স্থানীয় কৃষকেরা বলছেন সপ্তাহে দুদিন কীটনাশক স্প্রে করেও কোনো ফল পাওয়া যাচ্ছে না। পোকার আক্রমণে খেত পাতা শূন্য হয়ে মরে যাচ্ছে।

স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, খেতে পোকার আক্রমণের সঙ্গে সঙ্গে কীটনাশক প্রয়োগ করলে এ ধরনের পোকা দমন হবে।

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি রোপা আমন মৌসুমে উফশী ও হাইব্রিড জাতের ২৩ হাজার ১৮৮ হেক্টর জমিতে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ধান আবাদ হলে ৬৮ হাজার ২৮৬ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হবে। তবে পোকার আক্রমণের কারণে ফসল নষ্ট হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে শঙ্কা করছে কৃষি কার্যালয়ের কর্মকর্তারা।

গত কয়েক দিনে উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া, ধনিবস্তী, গোয়ালকারী, মিস্ত্রিপাড়া এবং দুওসুও ইউনিয়নের লালাপুর, মহিষমারী, ছাগলডাঙ্গীসহ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে উচ্চফলনশীল হাইব্রিড জাতের আমন খেতে এসব পোকার আক্রমণ বেশি। অধিকাংশ ধানগাছের পাতা মরে হলুদ হয়ে গেছে। কোনো কোনো জমির ধানগাছ প্রায় পাতাশূন্য হয়ে মরে যাচ্ছে।

বড়বাড়ী ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল জব্বার বলেন, গেল সপ্তাহে দুবার স্প্রে করার পরও দুবিঘা জমির আমন ধানের খেত কারেন্ট পোকার আক্রমণে ১০ শতকের ফসল নষ্ট হয়েছে। পোকার আক্রমণ হলে খেত রক্ষা করা সম্ভব হয় না।

দুওসুও ইউনিয়নের লালাপুর গ্রামের ধানচাষী আফজাল হোসেন জানান, আমন ধানের চারা রোপণের ১৫ দিন পরেই মাজরা পোকার উপদ্রব দেখা দিয়েছে। ধানের শিষ বের হওয়ার সময় ধানগাছে ঘাসফড়িং, পাতামোড়ানো ও কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন কোম্পানির কীটনাশক স্প্রে করেছেন। কিন্তু প্রতিকার হয়নি। একই অবস্থা অন্যান্য কৃষকদেরও।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, চলতি বছরে বৃষ্টি কম হওয়ায় আগাম জাতের আমন খেতে পোকার আক্রমণ বেশি দেখা দিয়েছে। কারেন্ট পোকার আক্রমণের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কীটনাশক প্রয়োগ করলে এ পোকা দমন করা সম্ভব। দেরি করলেই ফসল নষ্ট হচ্ছে। পোকা দমনে কৃষকদের নানা ভাবে পরামর্শ দিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/এ.

  • 25
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ