রহস্যময় বেদে জীবন

তারাগঞ্জের তিস্তা সেচ ক্যানেলের ধারে দেখা যায় ২০-২৫ টি বেদে পরিবার গড়ে তুলেছেন অস্থায়ী বসতি। কাঠফাটা রোদ আর তীব্র ভ্যাপসা গরমে নাভিশ্বাস তাদের। দুপুর বেলায় কাঠফাটা রোদের তাপে প্রাণটা দেহ থেকে বের হয়ে যাওয়ার অবস্থা। বেদে পরিবারে জন্ম নেয়াই যেন তাদের আজন্ম পাপ।

রবিবার পড়ন্ত বিকেলে কথা হয় বেদেদের সঙ্গে। তারা জানান, দুঃখ ও কষ্টে গাঁথা জীবনের কাহিনী। সাদামাটা জীবনযাপন তাদের। জীবনের সাথে যুদ্ধ করে প্রতিটি দিন কাটায় তারা। একটু সুখের জন্য সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা কঠোর পরিশ্রম করে।

এরা একদল রহস্যময় মানুষ। যাযাবরের মতো ঘুরে বেড়ায় এখানে-ওখানে। এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় দেখা যায় এদের। স্থানভেদে তাদের একেক নাম, আর বেঁচে থাকার জন্য বিচিত্র্য সব পেশা। নর-নারী, শিশুর অদ্ভুত তাদের চেহারা, অদ্ভুত তাদের কথাবার্তা। বেদে মানে ভ্রমণশীল বা ভবঘুরে। নদী নির্ভর বাংলাদেশে বেদেদের বাহন তাই হয়ে ওঠে নৌকা। নৌকায় সংসার আবার নৌকা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় বিভিন্ন জায়গায়। যাযাবর বলেই এদের জীবন বৈচিত্র্যময়। বেদেরা জীবনকে একঘরে রাখতে চায় না, প্রকৃতির ভালোবাসাকে স্বীকার করে নেয়। প্রকৃতির মধ্যেই এরা জীবনের বৈচিত্র্যের সন্ধান খোঁজে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন ধর্ম ও বর্ণের মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় ও সমস্যাসঙ্কুল হলো বেদে সম্প্রদায়ের জীবন। এরা মূলত আমাদের দেশে বাদিয়া বা বাইদ্যা নামে পরিচিত একটি জনগোষ্ঠী।

তাদের জীবন যুদ্ধ সম্পর্কে জানতে চাইলে কথা হয় বেদে কন্যা পাপিয়া, দোলা ও কেয়ার সাথে। জানালেন বেদে নারীরা তাদের স্বামীদের আঁচলে বেঁধে রাখার রহস্য। পুরুষ বশে রাখতে তারা শরীরে সাপের চর্বি দিয়ে তৈরি তেল ব্যবহার করে স্বামীর শরীরে তা নিয়মিত মালিশ করে, কারণ স্বামীকে বশ করে রাখবে।

তারা আরও জানালেন, তারা দিনে গ্রামে গ্রামে ঘুরে বেড়ায়। তাদের আর্থিক অবস্থা উন্নয়নের জন্য পেশা পরিবর্তনের সুযোগ করে দিতে পারলে এই জীবন থেকে মুক্তি পেতে পারে বেদে সম্প্রদায়। তাবিজ-কবজ বিক্রি, জাদুটোনা আর সাপ খেলা দেখিয়ে জীবন সংগ্রামে টিকে থাকতে হয় ছিন্নমূল, অসহায় এই বেদে সম্প্রদায়কে।

তারা রাস্তার পাশে, ফাঁকা মাঠে বা পরিত্যক্ত জমি, খাসজমি, রাস্তার ধার, স্কুলের মাঠের পাশে অথবা নদীর তীরে অতিথি পাখির মতো অস্থায়ীভাবে আবাস গড়ে তোলেন। আবার একদিন উধাও হয়ে যায়, কেউ খবর রাখে না তাদের।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/জে.

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ