নড়াইলে টানা দুই দিনের বৃষ্টিতে শহর পানির নিচে

দু’দিনের একটানা বর্ষণে নড়াইল শহরের বেশিরভাগসড়ক এবং বাড়ির আঙিনা পানিতে নিমজ্জিত। অনেক বাড়ির ভেতরে পানি প্রবেশ করে আসবাব নষ্ট হচ্ছে এবং রান্না পর্যন্ত বন্ধ হয়ে গেছে। এক কথায় জলাবদ্ধতায় নাকাল হয়ে পড়েছে পৌরবাসী।

সোমবার ও মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে নড়াইল পৌরসভার ২ নং, ৩ নং, ৪ নং, ৫ নং, ৬ নং এবং ৭ নং ওয়ার্ডের বেশিরভাগ সড়ক পানিতে ডুবে গেছে। কুড়িগ্রাম, মাছিমদিয়া, ভওয়াখালী, আলাদাতপুর, দক্ষিণ নড়াইল, দুর্গাপুর, মহিষখোলা, বরাশোলা, ভাটিয়া ও সিটি কলেজ পাড়ার অবস্থা বেশি নাজুক।

জানা গেছে, ১৯৭২ সালে নড়াইল পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর ৪৯ বছর পেরিয়ে গেলেও পৌরসভার ড্রেনেজ ব্যবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। বরং রূপগঞ্জ-তুলারামপুর খাল, ভাদুলিডাঙ্গা-মুলিয়া খাল, উত্তর ভওয়াখালী-বাহিরডাঙ্গা খালসহ কয়েকটি জলাশয় দিয়ে প্রাকৃতিকভাবে পৌর এলাকার পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে এসব খাল ও জলাশয় ভরাট ও দখল করে অপরিকল্পিতভাবে নড়াইল শহর ও পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে কয়েক হাজার বাড়ি, মার্কেট ও স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এ ছাড়া শহরের পাশ দিয়ে রেললাইনের কাজ করার কারণে পৌরসভার ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা পলি রহমান বলেন, বৃষ্টি হলেই মহল্লায় হাঁটুপানি জমে যায়। পানি বের হওয়ার কোনো জায়গা থাকে না। ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আল আমিন জানান, ঘরে পানি ঢোকায় আসবাব ভিজে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। রান্নাঘরে রান্নার পরিবেশ নেই।

নড়াইল পৌরসভার মেয়র আনজুমান আরা বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে অপরিকল্পিত এবং বিচ্ছিন্নভাবে ড্রেন তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়া খাল-জলাশয়গুলো ভরাট ও দখল করার কারণেও এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে নড়াইল পৌরসভায় প্রয়োজন ৫৫ কিলোমিটার ড্রেন। সেখানে রয়েছে মাত্র ৩ কিলোমিটার। তবে এখন পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা গড়ে তোলার চেষ্টা করছি।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/এইচ.

  • 11
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ