কাশিয়ানীতে ‘প্রতিবেশীর প্রাচীরে অবরুদ্ধ ৫ পরিবার

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে যাতায়াতের পথে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করে পাঁচটি পরিবারকে অবরুদ্ধ করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে।

বিকল্প কোন রাস্তা না থাকায় গত এক সপ্তাহ ধরে বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না ভূক্তভোগী পরিবারগুলো। বিপাকে পড়েছে ওইসব পরিবারের বয়স্ক নারী-পুরুষ ও শিশুরা। স্কুল-কলেজে যেতে পারছে শিক্ষার্থীরা। আধা কিলোমিটার পথ পাড়ি ঘুরে নৌকায় করে হাট-বাজার ও চিকিৎসা কেন্দ্রে যেতে হচ্ছে।উপজেলার নিজামকান্দি ইউনিয়নের ফলসি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে ভূক্তভোগী লাল্টু সরদার গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। যার প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক বিষয়টি কাশিয়ানী ইউএনও রথীন্দ্রনাথ রায়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযোগে লাল্টু সরদার বলেন, রাস্তাটি দুথশত বছর ধরে আমরা ব্যবহার হয়ে আসছে। প্রতিবেশি আসলাম শেখ, লাড্ডু শেখ ও হাসান শেখ স্থানীয় আধিপত্য বিস্তার ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে আমাদের চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি ইটের প্রাচীর দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা এখন অসহায় হয়ে পড়েছি। বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পাঁচটি পরিবারের বাড়িতে প্রবেশের রাস্তা বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বাড়ির উত্তর পাশে আসলাম শেখ ইটের প্রাচীর তুলেছেন। তার পাশে লাড্ডু শেখ টিনের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে রেখেছেন। পূর্বপাশে ইটের প্রাচীর তুলছে। উত্তর ও পূর্ব পাশ দিয়ে প্রাচীর তুলে হাঁটার পথ বন্ধ করে দিয়েছেন। দক্ষিন ও পশ্চিম পাশে পানি থাকায় যাতায়াতের কোন ব্যবস্থ নেই। অবরুদ্ধ হয়ে আছে পাঁচ পরিবারের অর্ধশত সদস্য। বাড়িতে ৬ জন শিক্ষার্থী ও একজন অন্তঃসত্ত্বা এবং বয়োজ্যেষ্ঠ রয়েছেন। দীর্ঘদিন পর স্কুল-কলেজ খুললেও স্কুল-কলেজে যেতে পারছে না শিক্ষার্থীরা।

অবরুদ্দ পরিবারের সদস্য ফুল জান বেগম (৭৫) বলেন, গত ৭ দিন ধরে আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। আমার নাতি রুপা সাড়ে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। যে কোন সময় সন্তান প্রসবের জন্য তাকে চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যেতে হতে পারে। তাই বিষয়টি নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি। আমরা এ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি ।

এ বিষয়ে আসলাম শেখের মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও তিনি তা রিসিভ করেননি। কথা হয় লাড্ডু শেখের সাথে তিনি বলেন, গত ৩২ বছর আমরা তাদের চলাচলে বাঁধা দেইনি। এক সপ্তাহ আগে আমাদের সাথে লাল্টু সরদারদের সাথে বিবাদ হয়। তাই আমরা পথ বন্ধ করে দিয়েছি।

নিজামকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাব্বত হোসেন জুয়েল বলেন, ‘পাঁচটি পরিবারের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এটা খুবই অমানবিক। বিষয়টি সমাধানের জন্য এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বসা হয়েছিল। কোন সমাধান করতে পারেনি। বিষয়টি ইউএনও স্যারকে জানিয়েছি।বিষয়টি আমরা দ্রুত সমাধান করবো।

কাশিয়ানীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রথীন্দ্র নাথ রায় বলেন, ‘বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে মীমাংসা করার জন্য বলেছি। তারা ব্যর্থ হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/এল.

  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ