কাশিয়ানীতে পরিত্যক্ত স্কুল ঘর উধাও!

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে নিলাম ছাড়াই গোপনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ঘর বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও সভাপতির বিরুদ্ধে।

উপজেলার ৪৭নং খাগড়াবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি দাউদ মোল্যা ও সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ওয়াহিদুর রহমানের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে গোপালগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন জাহিদ শেখ নামে স্হানীয় এক ব্যক্তি। অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের ৪৭নং খাগড়াবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি পরিত্যক্ত টিনের ঘর বিদ্যালয়ের তৎকালীন সভাপতি দাউদ মোল্যা ও সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা ওয়াহিদুর রহমান এক বছর আগে নিলাম ছাড়াই গোপনে বিক্রি করে দিয়েছেন। পরে এলাকাবাসী বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে খোঁজ নিয়ে নিলাম ছাড়া ঘর বিক্রির সত্যতা পান। দাউদ মোল্যার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ‘ঘর বিক্রির কোন বিষয় আমার জানা নেই।’

এ ব্যাপারে সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা এম ওয়াহিদুর রহমান বলেন, ‘এ ধরণের কোন বিষয় আমার জানা নেই। তবে স্কুল পরিচালনা কমিটির দ্বন্দের কারণে কেউ অভিযোগ দিতে পারেন।’ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জোহরা খাতুন বলেন, ‘আমি ২০১১ সালে স্কুলে যোগদান করার সময় একটি টিনের ঘর দেখেছি। পরে ঘরের কিছু জরাজীর্ণ টিন, কাঠ ও ভাঙাচোরা চেয়ারের আসবাবপত্র ৮ হাজার টাকা বিক্রি করে এটিও স্যারের কাছে টাকাগুলো দিয়েছিলাম। সে টাকা দিয়ে স্যারের মাধ্যমে একটি ল্যাপটপ কিনেছি।’ কাশিয়ানী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পরিমল চন্দ্র বালার সাথে মুঠোফোনে
কথা হলে, ‘স্কুলের কোন ঘর নিলাম হয়নি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।’

ডেইলিরুপান্তর/আবির

  • 73
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ