আদিতমারী উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন, থানায় অভিযোগ দিলেও ব্যবস্থা নেয়নি

ছেলেদের হামলার শিকার হয়ে বাড়ি ছাড়া হয়েছেন জামেলা বেওয়া (৭৫) নামে এক বৃদ্ধা।  থানায় অভিযোগ দিলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ অভিযোগ আমলে না নেওয়ার কারণে সংবাদ সম্মেলনে মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেছেন তিনি। রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে হামলাকারী ছেলেদের শাস্তির দাবি জানান তিনি।

বৃদ্ধা জামেলা বেওয়া আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ গোবধা ভিতরকুটি গ্রামে মৃত জসিম উদ্দিনের স্ত্রী। সংবাদ সম্মেলনে জামেলা বেওয়া জানান, স্বামী জসীম উদ্দিন জীবিত থাকাকালে ছয় ছেলে ও পাঁচ মেয়েকে জমি ভাগ বাটোয়ারা করে দেন। এ সময় তাদের বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী মেয়ে সাবিনা খাতুনকে ৫৪ শতাংশ ও স্ত্রী জামেলাকে ৭৯ শতাংশ জমি দলিল করে দেন তিনি। স্বামীর মৃত্যুর পর তার ও বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী মেয়ের জমি ছেলেরা বর্গা নিয়ে চাষাবাদ করতেন। কিছুদিন পর তিন ছেলে ঈমান আলী, সাইফুল ইসলাম ও সাইদুল ইসলাম তার মায়ের ও বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী বোনকে তাদের জমির ফসলের ভাগ দেওয়া বন্ধ করে দেন।

ফসলের ভাগ চাইতে গিয়ে ছেলেদের হাতে কয়েকবার মারধরের শিকার হন বৃদ্ধা জামেলা বেওয়া। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার বৈঠক হয়। ফসলের ভাগ না পাওয়ায় অত্যন্ত অর্থকষ্টে  দিনযাপন করছেন । গত ৩০ জুলাই তাদের জমি নিজেরা চাষাবাদ করার ঘোষণা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিন ছেলে মিলে বৃদ্ধা মাকে দা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) পুনরায় নিজেদের জমি চাষাবাদের জন্য গেলে ঈমান আলী তার বৃদ্ধা মা জামেলাকে মারধর করে ইমান আলীর নিজ  ঘরে আটকে রাখেন। খবর পেয়ে আদিতমারী থানা পুলিশ ঈমান আলী বাড়ি থেকে বৃদ্ধা ও প্রতিবন্ধী বোনকে থানা পুলিশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ছেলের বিরুদ্ধে মা  অভিযোগ দিলেও পুলিশ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। অপরদিকে ঈমান আলী তার বৃদ্ধা মা ও বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী বোনকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছেন। এরপর থেকে বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন জামেলা বেওয়া।

অত্যাচারী ও জমিলোভী তিন ছেলের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ দায়ের করেও আদিতমারী থানা পুলিশ কোন প্রকার সহযোগিতা না করায় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেন বৃদ্ধা জামেলা বেওয়া। সংবাদ সম্মেলনে বৃদ্ধার বুদ্ধি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী মেয়ে সাবিনা ও বড় মেয়ে রহিমা বেগমসহ গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন।

আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, ছেলের হামলায় মা জখমের বিষয়টি স্বীকার করেন।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/জি.

  • 45
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ