আদিতমারী থানার ওসি তদন্তের বিরুদ্ধে, জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির কাছে লিখিত অভিযোগ

লালমনিরহাটের আদিতমারী থানা ওসি (তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল এর বিরুদ্ধে লালমনিরহাট জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটি সহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন আদিতমারী প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ গোলাপ মিয়া।

অভিযোগে জানা যায়, গত ২মাস পূর্বে একটি অভিযোগ বিষয়ে ওসি তদন্তের সাথে যুক্তিতর্ক হয়েছিল আদিত মারী প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ গোলাপ মিয়া সাথে। সেই জের ধরে থানার ওসি (তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল বিভিন্ন সময়ে আক্রশ মূলক আচারণ করে আসচ্ছে সংবাদ কর্মী সাথে। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ গোলাপ মিয়ার মামা সাব-রেজিষ্টার গত ২৬ মার্চ ২০২১ ইং তারিখে মারা যায়। অতঃপর জনশ্রুতি মতে সংবাদ কর্মীর মামার প্রথম স্ত্রী এবং ওসি (তদন্ত) অফিসার যোগসাজশে একটি মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে সংবাদ কর্মীর মামার দ্বিতীয় স্ত্রীর আবাদি জমি ১২ বছর ধরে দখলে থাকা ১৬২ শতক  ধান সহ ওসি (তদন্ত ) জোর পূর্বক দখলে দিয়ে দেয় প্রথম স্ত্রীকে। এছাড়া মূত ব্যক্তিকে নিয়ে অপ্রাসঙ্গিক ও অশালীন গালিগালাজ করেন  ওসি (তদন্ত) সাব-রেজিষ্টার এর দ্বিতীয় স্ত্রীর সামনে। স্থানীয় সংবাদ কর্মীর তার মামার দ্বিতীয় স্ত্রীর যৌক্তিক পক্ষ অবস্থান করলে ওসি তদন্ত ক্ষিপ্ত হয়ে সংবাদ কর্মীকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। সেই থেকে সংবাদ কর্মীকে ওসি (তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়।

এছাড়া উক্ত সংবাদ কর্মী আদিতমারী থানার একাধিক অনিয়মের সংবাদ প্রকাশ করে এতে ওসি (তদন্ত) সংবাদ কর্মীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চালিয়ে যেতে থাকে। এরই প্রেক্ষিতে গত ১১/০৮/২১ ইং তারিখে প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ গোলাপ মিয়া তার কর্মস্থল গোল্ডেন গেট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ হতে তার পেশাগত দায়িত্ব পালনের উদ্দেশ্যে ০৩ নং কমলাবাড়ী ইউনিয়নের এলাকায় যাওয়ার পথে কুমড়ীর হাট বাজারের পশ্চিম পাশে সংবাদ কর্মীর ছোট বোনের বাসার সামনে ওসি (তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল সহ অসংখ্য পুলিশের উপস্থিতি দেখতে পায়।

বিষয়টি জানার জন্য সংবাদ কর্মী মটরবাইক থামিয়ে ওসি (তদন্ত) কে সংবাদ কর্মী হিসেবে জিজ্ঞাসা করিলে ওসি (তদন্ত) সংবাদ কর্মী কে অপেক্ষা করতে বলে। সংবাদ কর্মী মোবাইল ফোন দিয়ে ভিডিও করতে চাইলে সংবাদ কর্মীর আইডি কার্ড, ফোন এবং মোটরবাইক্ ছিনিয়ে নিয়ে বলেন অনেক লেখালেখি করেছিস এখন দেখ আমার ক্ষমতা। এই বলে জোর পূর্বক পুলিশ ভ্যানে উঠিয়ে থানায় নিয়ে যায়। সংবাদ কর্মীর বাসার লোকজন থানায় গিয়ে কোন বিষয়ে আটক করা হয়েছে জানতে চাইলে তাদের সাথে অপ্রাসঙ্গিক কথা বলে এবং মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠে ওসি (তদন্ত )গুলফামুল ইসলাম মন্ডল এর বিরুদ্ধে।

মিথ্যা মামলা বিষয়টি সরজমিনে তদন্তের জন্য লালমনিরহাট জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটি সহ পুলিশ সুপার কার্যালয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবিতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন সংবাদ কর্মী, স্থানীয় সচেতন মহল বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/জি.

  • 57
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ