শেরপুরে ৬ দফা দাবীতে ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৪৮ ঘন্টার কর্ম বিরতির ঘোষণা শ্রমিক ফেডারেশনের

৬ দফা দাবী বাস্তবায়ন করা না হলে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ভোর ৬.০০ ঘটিকা থেকে বৃহস্পতিবার ভোর ৬.০০ ঘটিকা পর্যন্ত শেরপুর জেলা ট্রাক, মিনিট্রাক, ড্রামট্রাক, ট্যাংকলড়ী ও কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়ন, জেলা ট্রাক ট্যাংকলড়ী ও কভার্ডভ্যান মালিক সমিতি এবং জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশনের অন্তর্ভূক্ত সকল ট্রেড ইউনিয়নের সকল শ্রমিকরা ৪৮ ঘন্টা কর্ম হইতে বিরত থাকবেন বলে জানিয়েছেন স্ব-স্ব শ্রমিক সংগঠন ও মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দগণ।

৩১ আগস্ট মঙ্গলবার রাতে শহরের নিউ মার্কেটস্থ জেলা জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশনের অস্থায়ী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন শেরপুর জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশনের আওয়াতাধীন ২৪টি শ্রমিক সংগঠন ও জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সসম্পাদক, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশন ঢাকা বিভাগীয় কমিটির সহ-সভাপতি, জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশন ও জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ আরিফ রেজা।

লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, গত ২০-০৯-২০১৯ ইং তারিখে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে শেরপুর জেলা ট্রাক, মিনিট্রাক ড্রামট্রাক, ট্যাংকলড়ী ও কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিস্ট্রেশন নম্বর: ঢাকা-৩২৭৭) এর ৮ম ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। শ্রমিকদের ভোটে নির্বাচিত হয়ে কার্যনির্বাহী পরিষদ, মালিক সমিতির সাথে মিলে-মিশে সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি। কিন্তু নির্বাচনে হেরে গিয়ে পরাজিত ২/৩ জন প্রার্থী স্বল্প সংখ্যাক শ্রমিক নিয়ে নিয়ম বহির্ভূত ও অবৈধ ভাবে শেরপুরে বাংলাদেশ আন্তঃজেলা ট্রাক চালক শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিঃ নং-১৬৬৫) নামে একটি সংগঠনের কার্যক্রম শুরু করেছে। নিয়ম অনুযায়ী এই সংগঠনটি (১৬৬৫) ঢাকা মহানগরের বাহিরে কোন কমিটি গঠন বা তাদের কোন কার্যক্রম পরিচালিত করতে পারবে না। এ নিয়ে জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার মহোদয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে নানাভাবে অভিযোগ দিয়েও কোন সমাধান করা হয়নি। সাধারণ শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের লক্ষে জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে একাদিকবার অবরোধ কর্মসূচী পালন করলেও প্রশাসন আমাদের সমস্যা সমাধান করবে, এ আশ্বাস দেয়ায় শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত ওই অবৈধ সংগঠনের কার্যক্রম বন্ধসহ আহত শ্রমিকদের বিষয়ে কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। এ নিয়ে ক্ষোভ বাড়তে থাকে জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের মধ্যে। তাই শ্রমিকদের ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নে জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশন ও জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের যৌথ উদ্যোগে এক জেলার কর্মরত সাংবাদিকদের নিয়ে সংবাদ সংম্মেলন করা হয়।

৬ দফা দাবী সমূহ হচ্ছে;
অত্র সংগঠনের আওতাধীন গৌরপুর লোকাল ট্রাক পরিচালনা অফিস ঘর পুনঃ দখল, সন্ত্রাসী ও ষড়যন্ত্রকারী দোষী ব্যাক্তিদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে শাস্তি নিশ্চিত করা, ২০০৬ সংশোধীত শ্রম আইন বহির্ভুত বাংলাদেশ আন্তঃজেলা ট্রাক চালক শ্রমিক ইউনিয়নের অনুমোদিত গৌরীপুর শেরপুরের অবৈধ শাখা কমিটি বাতিল করতে হবে।, রেজিঃ নং বি-১৬৬৫ অবৈধ সাংগঠনিক কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। গত ১৪/১১/২০১৯ ইং তারিখের জেলা প্রশাসকের সিদ্ধান্ত সমূহের বাস্তবায়ন, গত ১৪/১১/২০১৯ ইং তারিখের জেলা প্রশাসকের সিদ্ধান্ত সমূহের বাস্তবায়ন, মহাসড়কে অবৈধভাবে জোর পূর্বক চাঁদাবাজী বন্ধ করতে হবে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সকল প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের মাধ্যমে জাতির বিবেক হিসাবে প্রশাসনের নিকট উপরোক্ত বর্ণনার সমস্যাগুলি সম্পর্কে সমাধানের বিষয়ে প্রয়োজনীয় সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেছেন স্ব-স্ব শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এদিকে শ্রমিকরা ৪৮ ঘন্টার কর্মবিরতিতে গেলে জেলার অর্থনৈতি ব্যাপক ভাবে ক্ষতির মুখে পরবে বলে আশংকা করছেন ব্যবসায়ী মহল ও জেলার দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা। তারা জেলা প্রশাসনসহ সংশিষ্ট দপ্তরগুলোর কাছে দ্রুত এ সমস্যার সমাধান চেয়েছেন।

ওইসময় শেরপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মেরাজ উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাবিহা জামান শাপলা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আদিল মাহমুদ উজ্জল, মহিউদ্দিন সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মানিক দত্ত, জেলা জেলা বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, জেলা ট্রাক মিনিট্রাক ড্রামট্রাক ট্যাংকলড়ী-কভার্ডভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি ফারুক আহম্মেদ, সহ-সভাপতি বাদশা মিয়া, সাধারণ সম্পাদক হোসেন মোঃ হোসেন আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল হাসেম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নবী হোসেন বিল্লাল, কোষাধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম পলাশ, প্রচার সম্পাদক মোঃ আঃ কালাম, দপ্তর সম্পাদক মোঃ আঃ হামিদ, কার্যকরি সদস্য ফারুক হোসেনসহ বেসিক ট্রেড ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দসহ জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রেনিক মিডিয়া সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

ডেইলিরুপান্তর/আবির

  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ