ভ্রমণ বিষয়ক বাংলা ভাষার বইগুলোর তথ্যসমৃদ্ধ পূর্ণাঙ্গ তালিকা করতে চাই; আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল

বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স এসোসিয়েশান এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল বলেছেন, আমরা ভ্রমণ বিষয়ক বাংলা ভাষার বইগুলোর তথ্যসমৃদ্ধ পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করতে চাই। বাংলা ভাষায় রচিত অনেক বই ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এগুলোর পুরোপুরি তথ্য সংগ্রহ করে একটি পূর্ণাঙ্গ ডাটাবেস তৈরীর লক্ষে আমরা কাজ করছি।

আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল আজ রোববার সন্ধ্যায় সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারস্থ বাতিঘর লাইব্রেরিতে স্থানীয় লেখক, সাংবাদিক, ট্রাভেলার, ব্লগার, সাইক্লিস্ট, কবি, সাহিত্যিক,প্রকাশক,সংগঠক ও সমাজকর্মীদের সাথে  এক মনোমুগ্ধকর অনাড়ম্বর পরিবেশে আড্ডাকালে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মূলত ভ্রমণপিপাসু মানুষ হিসেবে আমি ভ্রমণ বিষয়ক বইগুলোর তথ্য সংগ্রহের জন্যই সিলেটে সফর করতে এসেছি।তিনি জানান, বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স এসোসিয়েশন এর পক্ষ থেকে বাংলা ভাষায় ভ্রমন বিষয়ক সকল বইয়ের একটি তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। এই তালিকাটিকে সমৃদ্ধ করার জন্য বিভিন্ন লেখকদের লেখা বইয়ের তথ্য তালিকাটিতে লিপিবদ্ধ করতে হবে।তিনি বলেন, আনুমানিক ১২শ এর অধিক ভ্রমণ বিষয়ক বই রয়েছে বাংলা ভাষায় যা আমরা তথ্য সংগ্রহ করে একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করবো। সেই তালিকায় যাতে তৃণমূলের লেখকের বইটিও যেন স্থান পায় সে তথ্য দিয়ে তাদেরকে সহযোগিতা করতে তিনি আহবান জানান । তিনি বলেন, এই তালিকা প্রকাশ পেলে পাঠকদের বই সম্পর্কে জানার পাশাপাশি দেশ এবং বিদেশে  বইয়ের প্রচার ও প্রসারে   ইহা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে।

আড্ডাকালে আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল বলেন,সিলেটের সাথে ভ্রমণের একটি সম্পর্ক রয়েছে অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে। এখানে অনেক ভ্রমণ লেখক রয়েছেন। বিশেষ করে দুই বাংলার কবি  সৈয়দ মুজতবা আলী ও সাইকেলে চড়ে বিশ্বভ্রমণকারী হবিগঞ্জের বানিয়াচং এর রামনাথ বিশ্বাসের মত লেখকের আবাসভূমি  সিলেটেই। শুধু রামনাথ ই ত্রিশটির অধিক ভ্রমণ বিষয়ক বই লিখেছেন।তিনি সাইকেলে চড়ে বিশ্বভ্রমণ করেছেন, ইতিহাসে এ তথ্য পাওয়া যায়।  এরা আমাদের সম্পদ। এ সম্পদ আমাদের নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস।

আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল সাইকেল চালিয়ে ১৯৯৭ সালে দশমাসে ১৯টি দেশ ভ্রমণ করেছেন। ভ্রমণ করতে টাকা লাগে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, সাইকেল চালিয়েই আমি লাল সবুজের পতাকার পাসপোর্ট হাতে নিয়ে বিশ্ব ভ্রমণ করেছি। এ পর্যন্ত ৫৪টি দেশ ভ্রমণের সৌভাগ্য আমার অর্জিত হয়েছে। তিনি বলেন, জানতে হলে পড়তে হবে, দেশভ্রমণ করতে হবে।

আনন্দঘন আড্ডায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সিলেটের সিনিয়র সাংবাদিক,নন্দিত লেখক ও গল্পকার সেলিম আউয়াল, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও দৈনিক আলোকিত সিলেটের নির্বাহী সম্পাদক গোলজার আহমদ হেলাল, শিক্ষিকা ও সংগঠক কবি ইছমত হানিফা চৌধুরী, চৈতন্য প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী মো: জাহিদুল হক চৌধুরী রাজীব, গাজী আব্দুল মাবুদ মমশাদ, বাংলাদেশ ট্রাভেল রাইটার্স এসোসিয়েশন এর কার্যনির্বাহী সদস্য কাজী জিয়া উদ্দিন বাপ্পী, তরুণ উদ্যোক্তা ও নিউ এমদাদিয়া লাইব্রেরীর পরিচালক মো: মঈন  উদ্দীন, সিলেট সাইক্লিং কমিউনিটির এডমিন মো: হাসান আহমদ, সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থী সৌরভ চন্দ্র দাস, এম সি কলেজের শিক্ষার্থী তামান্না ইসলাম, দৈনিক আলোকিত সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রতিনিধি আমির উদ্দিন, সাইক্লিস্ট আবু সালেহ, সাইক্লিস্ট মামুন শেখ, সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এর শিক্ষার্থী রাহিদুজ্জামান রাজীব, সিলেট এগ্রিকালচারাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট এর শিক্ষার্থী মিহরাব আহমদ চৌধুরী, সিলেট ইন্সটিটিউট অব হেলথ টেকনোলজির শিক্ষার্থী অন্তর শ্যাম প্রমুখ।

এর আগে বিকেলে তিনি উপমহাদেশের প্রাচীনতম সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ পরিদর্শন করেন। এসময় সংসদের পাঠাগারে সংরক্ষিত ভ্রমণ বিষয়ক বিভিন্ন বই তিনি অনুসন্ধান করেন। এসময় তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন তরুণ উদ্যোক্তা মো: মঈন উদ্দীন, শান্তিবাড়ী রিসোর্টের প্রতিষ্ঠাতা তানভীর লিংকন, এসোসিয়েশন এর কার্যনির্বাহী সদস্য কাজী জিয়া উদ্দিন প্রমুখ।

ডেইলিরূপান্তর/আরএ/ডি.

  • 336
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ