রাণীশংকৈলে দাখিল মাদ্রাসার মাঠ জুড়ে ধান চাষ

কোথাও পায়ের গোরালি পযর্ন্ত কোথাও হাটু সমান পানি তার মাঝেই জেগে উঠেছে ধানের গাছ। ধান কোথাও বেড়ে উঠেছে পানির উপরে কোথাও পানিতে ডুবে রয়েছে। আর এই ধান চাষ কোন প্রকৃত আবাদী জমিতে নই। ধান চাষ হচ্ছে একটি দাখিল মাদ্রাসার খেলার মাঠের জমিতে।

মাদ্রাসার সুপার জানিয়েছেন করোনায় লকডাউনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় মাদ্রাসার মাঠটিতে নৈশ্য প্রহরী রোপা আমন ধান রোপন করেছেন। সে গরীব মানুষ বিল বেতন নাই। তাই তাকে ধান চাষাবাদের অনুমতি আমি দিয়েছি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললে এ চাষাবাদ করার সুযোগ ছিলো না।

এই চাষাবাদ মাদ্রাসাটি হলো ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ইউনিয়নের চন্দনচহট আলহাজ্ব ইমারউদ্দীন দাখিল মাদ্রাসা। মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদ্রাসাটি নেকমরদ থেকে বালিয়াডাঙ্গী মহাসড়ক ঘেঁষায় অবস্থিত। দুর থেকে দেখে চেনার উপায় নেই এটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। মাদ্রসাটির চতুর পাশে ধানের আবাদ এবং কি মাদ্রাসাটিতে প্রবেশের তেমন কোন পথও নেই। কারণ মাদ্রাসার প্রবেশ পথ এখন চাষাবাদের জায়গায় রুপান্তর হয়ে পড়েছে।

মাদ্রাসাটিতে একটি বাড়ীর পাশ দিয়ে পানি মাড়িয়ে প্রবেশ করে এ প্রতিবেদক। এ সময় দেখা যায়, মাদ্রাসাটির ৬টি কক্ষ রয়েছে তাতে দুটি কক্ষে কিছু টেবিল চেয়ার জটলা করে রাখা হয়েছে। একটি রুমে মাদক সেবনের কিছু উপকরণ আর একটি রুমে ভুট্টার ডাটার স্তুপ করে রাখা হয়েছে। আরেকটি রুমে যাওয়া যায়নি মাদ্রাসার বারান্দায় খড়ির স্তপ করে রাখার কারণে। মাদ্রাসাটির প্রায় প্রত্যেক রুমেই নেই দরজা জানালা।

এ সময় কথা হয় ঐ মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী হামিদুর রহমানের সাথে তিনি বলেন, রোপা আমনে ধান চাষ করতে তেমন পানির প্রয়োজন হয় না। পানি সব সময় মাঠজুড়ে স্তুপ হয়ে থাকে। বিল বেতন নাই প্রায় ২২ বছর। মাঠটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে ছিল মাদ্রাসাও বন্ধ তাই সুপারকে বলে তিনি ধান চাষাবাদ করছেন। তিনি জানান মাদ্রাসা মাঠের ২৫ কাঠা জমিতে তিনি এ চাষাবাদ প্রায় চার বছর ধরে করে আসছেন।

মাদ্রাসার সুপার মনতাজ আলী কাজী সোমবার মুঠোফোনে জানান, মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী হামিদুর রহমান গরীব মানুষ তাছাড়া মাদ্রাসার বিল বেতনও নাই। তাই সে রোপা আমন চাষাবাদ করতে চাইলে মাদ্রাসার মাঠের জমিতে এ চাষাবাদ করছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ১৯৯৫ সালে ১ একর ৪ শতক জমিতে স্থাপিত হয়েছে এ মাদ্রাসাটি, বর্তমানে প্রায় ২২৫ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তাছাড়া প্রায় ১৬ জন শিক্ষক শিক্ষিকা ও কর্মচারী বিনা বেতনে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে। আদৌ বিল বেতন হবে কিনা সন্দেহ রয়েছে।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আলী শাহরিয়ার মুঠোফোনে বলেন, এই মাদ্রাসাটি চলমান কিনা আমার জানা নেই। তাছাড়া আলহাজ্ব ইমারউদ্দীন মাদ্রাসা নামে দাখিল মাদ্রাসা রয়েছে কিনা তাও আমার জানা নেই। এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, অব্যশই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে চাষাবাদ করতে পারে না কেউ।

আব্দুল কাদের নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর অভিভাবকসহ বলেন, দেড় বছর ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ছেলে-মেয়েরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না। আর সেই সুযোগে মাদ্রাসার মাঠে ধান চাষ করছে কর্তৃপক্ষ। এতে মাদ্রাসার মাঠে খেলাধুলার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। এটি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের ঠিক হয়নি।

মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ার হোসেনের কাছে ধান রোপণের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাদ্রাসটি এমপিও ভুক্ত হয়নি। করোনার জন্য বন্ধও রয়েছে। তাই ফেলে না রেখে অফিস কর্মচারী ধান রোপণ করেছেন। এতে সমস্যা তো দেখছি না।

রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঠে ধান চাষ করার কোনো বিধান নেই। মাঠটি খেলার জন্য শিক্ষার্থীদের জন্য উম্মুক্ত থাকবে। বিষয়টি আপনাদের মাধ্যমে জানলাম। এবিষয়ে মাদ্রাসার সুপারকে ডেকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ডেইলিরুপান্তর/আবির

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ