করোনা পজিটিভ হলেও আলাদা বসে পরীক্ষা দিতে হবে’

টিকা ছাড়া ও আবাসিক হল না খুলে আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের সশরীরে পরীক্ষা। ১ সেপ্টেম্বর থেকে পরীক্ষা নেয়া শুরু করতে বেশ কয়েকটি রুটিন ও প্রকাশ করা হয়েছে। যেহেতু স্বশরীরে পরীক্ষা হবে সেক্ষেত্রে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যায় শিক্ষার্থীদের মাঝে। পরীক্ষা চলাকালিন সময়ে কোন শিক্ষার্থী যদি করোনা পজিটিভ হয় তাহলে তাকে আলাদা বসিয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে বলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানান সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার।

গত রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামালের সঙ্গে সাত কলেজের অধ্যক্ষদের বৈঠকে সাত কলেজের সশরীরে পরীক্ষা শুরু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুরুতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে স্নাতক ২য় বর্ষের অনিয়মিত, মানোন্নয়ন ও বিশেষ (অনিয়মিত ও মানোন্নয়ন) পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হয়েছে। ধারাবাহিকভাবে অন্য বর্ষের নিয়মিত পরীক্ষার রুটিন প্রকাশের বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে সূত্রে জানা গেছে।

বৈঠক শেষে সাত কলেজের সমন্বয়ক প্রফেসর আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার তার ফেইসবুক পেইজে বৈঠকে গ্রহীত সিদ্ধান্তের কথা জানান। সিদ্ধান্ত শুনে সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে। শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যদি করোনা পজিটিভ হই তাহলে পরীক্ষা কিভাবে দিবো। এমন প্রশ্নের উত্তরের আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, তাকে আলাদা বসে পরীক্ষা নেয়া হবে।

করোনা পজিটিভ হলে আলাদা বসিয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে এমন বক্তব্য শুনে শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন ক্ষোভ। এ সর্ম্পকে তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী মামুন মিশাদ বলেন, পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে শিক্ষার্থীদের মনোভাব জানতে চাওয়া হয়েছিল যে আমরা কিভাবে পরীক্ষা দিতে আগ্রহী, দুই তৃতীয়াংশের বেশি ছাত্র-ছাত্রীই অনলাইনে পরীক্ষা দিতে আগ্রহী ছিলো। কিন্তু শিক্ষার্থীদের মতামতের গুরুত্ব তারা রাখেনি। করোনা ভ্যাকসিন প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীই দিচ্ছে অথচ সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের চাতক পাখির মতো চেয়ে থাকতে হচ্ছে সরকারের ১৮ বছর বয়সীদের কবে দিবে সেদিকে।

শিক্ষার্থী মামুন মিশাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে শিক্ষার্থীদের ভ্যাক্সিন এর আওতায় আনার পরেও শিক্ষার্থীদের পরীক্ষাসমূহ অনলাইনে নিচ্ছে। ভ্যাক্সিন দেওয়ার পরেও তারা তাদের শিক্ষার্থীদের সবদিক বিবেচেনায় রেখে তাদের কোনো প্রকার ঝুকির মধ্য ফেলছে না। সেখানে আমাদের ভ্যাকসিনের কোনো ব্যবস্থা না করেই স্ব শরীরে পরীক্ষা নেয়ার কথা জানাচ্ছে।

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী নিলয় রহমান বলেন, পরীক্ষা দিতে গিয়ে যদি করোনা পজিটিভ হয়ে যাই তাহলে তো হাসপাতালে থাকতে হবে। আলাদা বসে পরীক্ষা দিতে হলে তো কেন্দ্র আসতেই হবে। করোনা পজিটিভ নিয়ে কিভাবে পরীক্ষা দিবো? আমরা অনলাইনে পরীক্ষা দিতে চাই।

করোনা পজিটিভ হলেও আলাদা বসিয়ে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত অফিসিয়াল কিনা সে সর্ম্পকে জানতে, সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারের সাথে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি।

শিক্ষা/এসডি

  • 466
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ