আদিতমারীতে মন্দির নিয়ে সংঘর্ষ; মন্দির কমিটির সভাপতিসহ আহত ৩

লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার বুড়ির দীর্ঘী কেন্দ্রীয় মন্দিরে কমিটি নিয়ে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সাথে দ্বন্দ্বের জের ধরে ভাইস-চেয়ারম্যান এর লোকজনের হাতে মন্দির কমিটি সভাপতি সহ ৩ জনকে পিটিয়ে আহত করে।

জানা যায়, আদিতমারী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকার কে প্রধান আসামি ও কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কমল কৃঞ্চ সরকার সহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

রোববার(১ আগস্ট) বিকেলে আদিতমারী থানায় অভিযোগটি দায়ের করেন উপজেলার বুড়ীরদীঘী সার্বজনীন কেন্দ্রীয় বৃদ্ধশ্বরী রাধাগোবিন্দ ও দূর্গা মন্দির কমিটির সম্পাদক জ্ঞানদা মোহনরায়।

অভিযোগে জানা গেছে, আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়নের বুড়িরদীঘী সার্বজনীন কেন্দ্রীয় বৃদ্ধশ্বরী রাধাগোবিন্দ ও দূর্গা মন্দির কমিটির মেয়াদ ২০২০সালে শেষ হওয়ার পর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকার আহবায়ক ও কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কমল কৃঞ্চ সরকারকে সদস্য সচিব করে মন্দির পরিচালনা করে আসছে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার জন্য একাধিকবার মন্দিরের কমিটি গঠন করার জন্য আহ্বায়ক কমিটি কে তাগিদ দিলেও তারা কোন কমিটি গঠন করেনি। অবশেষে পূর্বের কমিটি ও বর্তমান কমিটি সকলেই উপস্থিত হয়ে মন্দিরে সকল সম্মতিক্রমে হা না  ভোটের মাধ্যমে সুমন্ত কুমার রায়কে সভাপতি ও জ্ঞানদা মোহন রায়কে সম্পাদক করে মাসখানেক আগে নতুন কমিটি গঠন করেন। কমিটি গঠনের পর থেকেই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন এর সাথে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

এদিকে শনিবার (৩১ জুলাই) বিকেলে পূজারীরা মন্দিরে গেলে ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকার দলবল নিয়ে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে দেশীয় অস্ত্র ছোড়া, রামদা, লোহার রড ও বাঁশের লাঠি দিয়ে অতর্কিত ভাবে হামলা চালায়। এতে মন্দির কমিটির সভাপতি সুমন্ত কুমার রায় (৫০), সাংগঠনিক সম্পাদক নীলকান্ত রায় (৪৫) ও দপ্তর সম্পাদক বকুল চন্দ্র রায় (৩৫) কে অতর্কিত হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে।

আহতদের আত্মচিৎকারে শব্দ শুনে বুড়ির দীর্ঘী বাজারের লোকজন রক্তাক্ত অবস্থা আহতদের উদ্ধার করে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠায়। উক্ত ঘটনায় মন্দির কমিটির সম্পাদক জ্ঞানদা মোহন রায় বাদী হয়ে আদিতমারী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকারকে ১ নং আসামিও কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কমল কৃঞ্চ সরকারকে ২ নং আসামি করে  ২৪ জনের বিরুদ্ধে আদিতমারী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে প্রধান আসামি ভাইস-চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকারের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন ছোটখাটো ঝগড়া হয়েছে সাক্ষাতে কথা হবে বলে ফোন কেটে দেন।

আদিতমারী থানা অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

ডেইলিরূপান্তর/আরএ

  • 142
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ