প্রিন্স অব পোর্ট অব স্পেন থেকে ক্রিকেটের বরপুত্র

১৯৯০ সাল, ক্রিকেটে উইন্ডিজদের দাপট তখন খানিকটা কমে গিয়েছে। সেই সময়ে ওয়েস্ট দলে আভির্ভাব ঘটে ২১ বছর বয়সী এক তরুণের। যে কিনা পরিবর্তিতে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিল  উইন্ডিজ ক্রিকেটের হারাতে বসা জৌলস। টেস্ট ক্রিকেট বলেন বা একদিনের ক্রিকেট, কভার ড্রাইভ, পুল কিংবা স্কয়ার কাট, নান্দনিক সব শট খেলে স্টেডিয়াম ভর্তি দর্শকদের মুখোরিত করে রাখতো সবসময়। তিনি মাঠে নেমেছেন মানেই তার জাদুশৈলী দেখতে এক দৃষ্টিতে তার ব্যাটের দিকে তাকিয়ে আছে সবাই। শুধুই কি দর্শকদের আনন্দ দেয়া? শেন ওয়ার্ন বা মুরালি, ব্রেট লি কিংবা শোয়েব আখতার, এছাড়াও বিশ্ব ক্রিকেটের বাঘা বাঘা সকল বোলারদের তুলোধুনো করে গড়েছেন একের পর এক তাক লাগিয়ে দেয়া সকল রেকর্ড। নিজেই রেকর্ড গড়েছেন আবার নিজেই সেটা ভেঙ্গেছেন।

এতক্ষণে হয়তো কিছুটা হলেও আঁচ করতে পেরেছেন। হ্যাঁ পাঠক, বলছি ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের নয়নাভিরাম ত্রিনিদাদে জন্ম নিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটে রাজ করে যাওয়া ক্রিকেটার ব্রায়ান চার্লস লারার কথা। একের পর এক অভাবনীয় সব রেকর্ড গড়ে দি প্রিন্স অব পোর্ট অব স্পেন থেকে ক্রিকেটের  বরপুত্রের তকমা পেয়েছিলেন তিনি। ব্রায়ান চার্লস লারার কিছু রেকর্ড দিয়েই সাজানো এই ফিচারটি…

– প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৮ ইনিংসে ৭ সেঞ্চুরি পাওয়া প্রথম ব্যাটসম্যান হলেন ব্রায়ান লারা। এইসবের শুরুটা হয়েছিল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত ৩৭৫ দিয়ে, আর শেষ হয়েছিল অপরাজিত ৫০১ রানের ইনিংস দিয়ে। ম্যাথিউ হেইডেন তাঁর ৩৭৫ রানের রেকর্ড ভেঙে দেয়ার পর ২০০৪ সালে আবারও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪০০ রানের ইনিংস খেলে হারানো রেকর্ড পুনরুদ্ধার করেন লারা। এই অমর ইনিংসটির মধ্য দিয়ে তিনি দুইটি ৩৫০+ রানের ইনিংস খেলা একমাত্র ব্যাটসম্যান হয়ে যান। আর দুইটি রেকর্ডই নিজের বগলদাবা করেছেন এমন ব্যাটসম্যান কেবল লারাই।

– ব্রায়ান লারাই হচ্ছেন একমাত্র ব্যাটসম্যান, যিনি একসাথে টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ স্কোর ও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সর্বোচ্চ স্কোরের মালিক।

– টেস্ট ইতিহাসে দুইটি ট্রিপল সেঞ্চুরি আছে মোট ৪ জন ব্যাটসম্যানের- স্যার ডন ব্র্যাডম্যান, ব্রায়ান লারা, বীরেন্দর শেবাগ ও ক্রিস গেইল। টেস্টে দুইটি ট্রিপল সেঞ্চুরি করা দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান তিনি।

– ক্রিকেটের বরপুত্রের অভিষেক টেস্ট সেঞ্চুরি সিডনিতে। ইনিংসটিকে তিনি টেনে নিয়ে গিয়েছিলেন ২৭৭ পর্যন্ত। অভিষেক টেস্ট সেঞ্চুরিতে সবচেয়ে বেশি রান করার তালিকায় চতুর্থ স্থানে আছে লারার এই ইনিংসটি।

– অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ টেস্ট স্কোরের মালিকও লারা (৪০০*)।

– সর্বোচ্চ ইনিংসের বিশ্বরেকর্ড দুইবার ভাঙা একমাত্র ব্যাটসম্যান ব্রায়ান লারা।

– গ্রেগ চ্যাপেল, সুনীল গাভাস্কার, গ্রাহাম গুচ, লরেন্স রো ও ডগ ওয়াল্টার্সের পর একই টেস্টে সেঞ্চুরি ও ডাবল সেঞ্চুরির বিরল রেকর্ডের মালিক লারা।

– সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষে অন্তত একটি করে টেস্ট সেঞ্চুরি আছে তাঁর।

– টেস্টে পরাজিত দলের হয়ে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড লারার। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওই সিরিজেই কলম্বো টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৩৫১ রান করেছিলেন লারা (২২১+১৩০), কিন্তু ম্যাচটা শ্রীলঙ্কাই জিতেছিল ১০ উইকেটে।

– ইনিংস বিবেচনায় দ্রুততম ১০ ও ১১ হাজার রান করার রেকর্ড লারার। ১০ হাজার রানের রেকর্ডের ক্ষেত্রে টেন্ডুলকার সঙ্গী হিসেবে থাকলেও দ্রুততম ১১ হাজার রানের মালিক কেবলই লারা।

এগুলো ছাড়াও আরো অসংখ্য রেকর্ড আছে লারার ঝুলিতে। পুরো ক্যারিয়ারে ব্রায়ান লারা টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন ১৩১ যেখানে তিনি রান সংগ্রহ করেছেন ১১৯৫৩। সর্ব্বোচ্চ স্কোর ৪০০ রান, যা এখনো কেউ ভাঙতে পারে নি। ২৯৯ ওয়ানডেতে লারা রান সংগ্রহ করেছেন ১০৪০৫। যেখানে সর্বোচ্চ স্কোর ১৭৯ রান। ক্যারিয়ারের তিন টি-টোয়েন্টিতে লারার সংগ্রহ ৯৯ রান, সর্ব্বোচ্চ করেছিলেন ৬৫ রান। এছাড়াও ২৬১ টি ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট ম্যাচ খেলে লারা তার রানের ঝুলিতে সংগ্রহ করেছিলেন ২২১৫৬ রান। আর ৪২৯টি লিস্ট-এ ম্যাচ খেলে তার সংগ্রহ ১৪৬০২ রান।

ডেইলিরূপান্তর/আরএ

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ