সিলেটে শিক্ষিকাকে হত্যা করা হয় গলা কেটে, দা উদ্ধার

সিলেটের ওসমানীনগরে তপতি চৌধুরী (৪২) নামের এক শিক্ষিকাকে বটি দা দিয়ে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। রবিবার (২০ জুন) সকালে ওসমানীনগর থানা পুলিশ স্কুল শিক্ষিকা ও বাড়ির কাজের ছেলে গৌরাঙ্গের লাশ উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়।

ঘরের দরজা বন্ধ করে এই নৃশংস হত্যাকান্ডটি একাই গৌরাঙ্গ ঘটিয়েছে বলে পুলিশ তদন্ত করে নিশ্চিত হয়েছে। সেজন্য সে নিজেই আত্মহত্যা করেছে। ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের সোয়ারগাঁও খয়েরপুর গ্রামে শনিবার (২০ জুন) দিবাগত রাতে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত শিক্ষিকা তপতি চৌধুরী দয়ামীর গ্রামের ডা. বিজয় দে’র স্ত্রী। তিনি ওসমানীনগরের সোয়ারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করতেন।

ওসমানীনগর থানার ওসি শ্যামল বণিক বলেন, হত্যাকান্ডে যে বটি দা ব্যবহার করা হয়েছে সেটা উদ্ধার করেছে পুলিশ। শিক্ষিকার পুরো গলাটা দা দিয়ে কাটা হয়েছে। মাথাটা গাড়ের চামড়ার সাথে একটু ঝুলানো অবস্থা ছিলো। বাড়ির কাজের ছেলে গৌরাঙ্গ একাই এঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে পুলিশ নিশ্চিত। যার কারণে সে নিজেই বসত ঘরে গালায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

তিনি বলেন, নিহত শিক্ষিকা তপতির স্বামী নিজের চেম্বার থেকে রাতে বাড়ি ফিরে বসতঘরের দরজা বন্ধ পাওয়ায় স্ত্রীকে ডাকাডাকি করে কোনও সাড়া পাননি। পরে তিনি পুলিশকে জানান। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরের দরজা ভেঙে শিক্ষিকা তপতি চৌধুরীর লাশ উদ্ধার করে।

এজে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ