সিলেটের বিভিন্ন বুথে ভাগ করে ভ্যাকসিন নিচ্ছেন সাধারণ মানুষ

করোনার টিকা নিয়ে মানুষের মধ্যে প্রথমে ভয় কাজ করলেও এবার সেই টিকায় আস্থা বেড়েছে সিলেটের মানুষের। প্রতিদিনই বাড়ছে টিকা নিতে আগ্রহীদের সংখ্যা। সিলেটে রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) থেকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধী টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এই কার্যক্রমের চতুর্থ দিনে সাধারণ মানুষের উপস্থিতি দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। সূত্র জানায়, সিলেট মহনগরীতে পঞ্চম দিন ভ্যাকসিন নিলেন ৪ হাজারের অধিক নারী-পুরুষ।

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থাপিত ১২টি, সিলেট বিভাগীয় পুলিশ (পুলিশ লাইন্স) হাসপাতালে ১টি, বিজিবি ক্যাম্পে ১টি ও র‌্যাব-৯ সদর দপ্তরে ১টি বুথে ভ্যাকসিন নেন তারা।
সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানান, সিলেট মহানগরীতে বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন মোট ৪ হাজার ৭৫ জন। এর মধ্যে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩ হাজার ৩ শ ৬৭ জন টিকা নিয়েছেন। এদের মধ্যে পুরুষ ১৯৩২ ও নারী ১৪৩৫ জন।

অপরদিকে, সিলেট বিভাগীয় পুলিশ (পুলিশ লাইন্স) হাসপাতাল করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে ৩ শ জন নারী-পুরুষ। এর মধ্যে পুরুষ ২১৫ ও নারী ৮৫ জন।এছাড়াও সিলেট বিজিবি ক্যাম্পে স্থাপিত বুথে ২৩০ জন এবং র‌্যাব-৯ সদর দপ্তরের বুথে ১৭৮ জন করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে বিজিবি ক্যাম্পে পুরুষ ২১৬ ও নারী ১৪ জন এবং র‌্যাব-৯ সদর দপ্তরের বুথে ১৪৫ জন পুরুষ ও ৩৩ জন নারী ভ্যাকসিন নিয়েছেন।উল্লেখ্য, মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সিলেটে ৭ ফেব্রুয়ারি (রোববার) থেকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) এই কার্যক্রমের পঞ্চম দিন।

সিলেট নগরীতে দুটি কেন্দ্র ও ১৩টি বুথে চলছে টিকাদান কার্যক্রম। কেন্দ্র দুটি হচ্ছে- সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সিলেট বিভাগীয় পুলিশ (পুলিশ লাইন্স) হাসপাতাল। এর মধ্যে ওসমানী হাসপাতালে স্থাপন করা হয়েছে ১২টি বুথ এবং পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে ১টি বুথ।এছাড়াও সিলেট বিজিবি ক্যাম্পে এবং র‌্যাব-৯ সদর দপ্তরে স্থাপিত ১টি করে বুথে চলছে টিকাদান কার্যক্রম।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ