অপছন্দ হলেও সবাইকে মাস্ক পরতে বললেন ট্রাম্প

কোভিড-১৯ মহামারী নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প তার ব্যক্তিগত নীতি বদলে ফেলেছেন। তার সাম্প্রতিক কথাবার্তা ও কাজকর্ম দেখলেই সেটি স্পষ্ট হয়। আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে এই ইউটার্ন নিয়েছেন ‘চতুর’ ট্রাম্প।

যেই ট্রাম্প করোনাভাইরাসকে গুরুত্ব দিতেই রাজি ছিলেন না, তিনি এখন সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সবাইকে মাস্ক পরার পরামর্শ দিচ্ছেন। পছন্দ না হলেও সবাইকে মাস্ক পরতে বলেছেন তিনি। কিছু দিন আগেও মাস্ক পরার ঘোরবিরোধী ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

করোনাভাইরাস প্রসঙ্গ নিয়ে মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে সংবাদ সম্মেলনে এসে রীতিমতো মাস্ক পরার পক্ষে প্রচার চালান ট্রাম্প। সবাই মাস্ক পরতে আহ্বান জানিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, যখন আপনাদের সামাজিক দূরত্ব মানা সম্ভব হয় না, সে পরিস্থিতিতে আমরা সবাইকে মাস্ক পরার আহ্বান জানাচ্ছি।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব রোধে মাস্ক পরার কার্যকারিতা আছে বলে অকপটে স্বীকার করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট, আপনার পছন্দ হোক বা না হোক, মাস্ক পরার একটি প্রভাব আছে। এ সংক্রমণ ঠেকাতে আমাদের সম্ভাব্য সব কিছুই করতে হবে। সানন্দে আমি এটি ব্যবহার করব।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মাঝে কিছুটা স্তিমিত হয়ে এখন বেড়েই চলেছে। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৬৮ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে টানা আট দিনে ৬০ হাজারের বেশি করে মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশটি।

যুক্তরাষ্ট্রে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এরই মধ্যে ৪০ লাখ ২৮ হাজার ছাড়িয়ে গেছে, যা বিশ্বের মোট আক্রান্তের প্রায় এক-চতুর্থাংশ। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে প্রায় এক লাখ ৪৫ হাজার মানুষের। সুস্থ ১৮ লাখ ৮৬ হাজার বাদ দিলে দেশটিতে অ্যাকটিভ করোনা রোগী আছে ২০ লাখ ছুঁই ছুঁই।

কোভিড-১৯ সংক্রমণে মাস্ক পরাকে অন্যতম হাতিয়ার বলে এলেও শুরু থেকেই এর বিরোধী ছিলেন ট্রাম্প। কিন্তু সময়ের সঙ্গে ভোল পাল্টিয়েছেন তিনি।গত পরশু টুইটার পোস্টে মাস্ক পরাকে দেশপ্রেম বলে উল্লেখ করে টুইট করেন ট্রাম্প। ‘এই চীনা ভাইরাসকে হারাতে আমাদের প্রচেষ্টায় আমরা ঐক্যবদ্ধ। অনেক মানুষ বলেন, যখন আপনি সামাজিক দূরত্ব মানতে পারেন না, তখন মাস্ক পরাটা স্বদেশপ্রেম। আমি আপনাদের প্রিয় প্রেসিডেন্ট।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ