যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে দোহার-নবাবগঞ্জে শোকের ছায়া

সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পগ্রুপ যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। তার মৃত্যুতে দোহার নবাবগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো) তিনি সোমবার বিকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

নবাবগঞ্জের চুড়াইন ইউনিয়নের কামারখোলা গ্রামে ১৯৪৬ সালে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। বাবা আমজাদ হোসেন ও মাতা জমিলা খাতুনের কোল আলো করে নবাবগঞ্জের কামারখোলা জম্মেছিলেন এ ক্ষণজম্মা। তার মৃত্যুতে দোহার-নবাবগঞ্জবাসী একজন উন্নয়নমুখী অভিভাবককে হারালেন।

বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পাশে থেকে তিনি দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন আমৃত্যু। তার মৃত্যুতে দোহার নবাবগঞ্জের মানুষ একজন শুভানুধ্যায়ীকে হারালেন। স্বাধীনতার পর এই অঞ্চলের মানুষের সুখে দুঃখে তিনি পাশে ছিলেন। যে কোনো দুর্যোগে তিনি মানুষের পাশে থেকে শক্তি সাহস দিয়ে অনুপ্রাণিত করেছেন।

তার মৃত্যুতে শোক জানান, দোহার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন, নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন আহমেদ ঝিলু, আওয়ামী লীগ জাতীয় কমিটির সদস্য আব্দুল বাতেন মিয়া, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা মো. আবুল হোসেন, নবাবগঞ্জ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. জালাল উদ্দিন, নবাবগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি আলহাজ ইব্রাহীম খলিল, সাধারণ সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম, দোহার প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল হাসান, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান টিপু, প্রিয়বাংলা সম্পাদক অমিতাপ পাল অপু, এ লতিফ চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান নুরে আলম জিতু, দোহার নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা বিএনপি, জাতীয় পার্টি, নবাবগঞ্জ উপজেলা, শিক্ষক সমিতি, নবাবগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, দোহার ও নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাব, ইউপি চেয়ারম্যানগণ, বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টি ঢাকা জেলা কমিটি, ঢাকা জেলা ও নবাবগঞ্জ উপজেলা কৃষকলীগ, নবাবগঞ্জ উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগ, ঢাকা জেলা ও নবাবগঞ্জ উপজেলা মানবাধিকার কমিশন।

পাশাপাশি আরও শোক জানিয়েছেন মরহুমের জন্মস্থান চুড়াইন কামারখোলা গ্রামের ছোটবেলার সাথী, বন্ধুমহল ও শুভাকাঙ্ক্ষীসহ আত্মীয় স্বজনরা। তার মৃত্যুতে দোহার-নবাবগঞ্জ ও দেশ বিদেশে অবস্থানরত সর্বস্তরের মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন। একজন শিল্পোদ্যাক্তাকে হারিয়ে শোকে কাতর হয়ে পড়েছেন তার অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী ও স্বজনরা। অনেকেই অশ্রুসিক্ত হয়ে ফোনে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ