আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস: দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণ নেমেছে অর্ধেকে

করোনা (কোভিড-১৯) মহামারী শুরুর পর স্বাস্থ্যসেবায় ধস নেমেছে। এর প্রভাবে এরই মধ্যে দেশে স্বল্পমেয়াদি পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ কমে গেছে ২৫ শতাংশ। আর দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণ নেমে এসেছে অর্ধেকেরও কমে। এ সময়ে নারী ও কিশোরীদের সুস্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিত করা বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত হতে যাচ্ছে। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য- ‘মহামারী কোভিড-১৯-কে প্রতিরোধ করি, নারী ও কিশোরীর সুস্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিত করি’। দিবসটি উপলক্ষে জনসংখ্যা ও উন্নয়নবিষয়ক বক্তৃতা, র‌্যালি, অনলাইন সেমিনার ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি চলমান থাকলে এবং লকডাউন পরিস্থিতি যদি আরও ছয় মাস দীর্ঘ হয় তাহলে নিম্ন-মধ্যম ও নিম্ন আয়ের ১১৪ দেশে ৪৭ মিলিয়ন (৪ কোটি ৭০ লাখ) নারী আধুনিক জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি থেকে বঞ্চিত হবেন। আর অতিরিক্ত ৭ মিলিয়ন (৭০ লাখ) নারী অনাকাক্সিক্ষত গর্ভধারণের শিকার হবেন।

প্রতিবেদন অনুসারে, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি বাল্যবিবাহের ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। বিশ্বে ১৩ মিলিয়ন (১ কোটি ৩০ লাখ) বাল্যবিবাহ হবে। এর মধ্যে ৮ মিলিয়ন (৮০ লাখ) বাল্যবিবাহ হবে শুধু বাংলাদেশে। যেখানে বাল্যবিবাহের হার ৫০ শতাংশেরও বেশি।

জানতে চাইলে জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) বাংলাদেশ হেলথ সিস্টেম স্পেশালিস্ট ড. দেওয়ান মো. ইমদাদুল হক যুগান্তরকে বলেন, লকডাউন পরিস্থিতি ও মায়েদের মধ্যে করোনাভীতির কারণে ফ্যামিলি সার্ভিস সিস্টেম ব্যাহত হচ্ছে। তাদের পারসেপশন (চিন্তাভাবনা) ও ট্রাভেল করতে না পারা একটি বড় কারণ। এ ছাড়া সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রেও অসুবিধা রয়েছে। যেমন: ডাক্তারা বলছেন, তারা যদি মানসম্মত পিপিই না পান তাহলে তারা সার্ভিস দেবেন কীভাবে। কারণ, কে কোভিড-১৯ পজিটিভ, আর কে নেগেটিভ-তা নির্ধারণ করা কঠিন। ধরেই নিতে হয় যে, সবার কোভিড-১৯ পজিটিভ। এমনভাবেই সচেতনতার সঙ্গে সেবা দিতে হয়।

ইমদাদুল হক আরও বলেন, সরকারের হেলথ ইনফরমেশন সিস্টেমের ডেটা বিশ্লেষণে দেখা গেছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে সরকারি হেলথ কর্মকর্তারা যে সেবাটি দিতেন তা চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। অধিকাংশ বাড়িতেই সবাইকে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না (আবার কোথাও কর্মীরাও যাচ্ছেন না)। গত বছরের এ সময়ের তুলনায় চলতি বছরের এ সময়ে স্বল্পমেয়াদি পরিবার পরিকল্পনা সিস্টেম ২৫ শতাংশ কমে গেছে। আর দীর্ঘমেয়াদি পরিবার পরিকল্পনা কমেছে ৫০ শতাংশের বেশি। দেশে পরিবার পরিকল্পনার পদ্ধতিগত কোনো স্বল্পতা নেই। কিন্তু সার্ভিস প্রোভাইডররা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সেবা দিতে না পারায়, কোনো ক্ষেত্রে না যাওয়ায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

ইমদাদুল হক বলেন, এ পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণের জন্য আমাদের দুটি কাজ করতে হবে। কমিউনিটি লেভেলে সচেতনতা তৈরি করে তাদের সার্ভিস নেয়ার জন্য বলতে হবে। আরেকটি হল মাস্ক ব্যবহার করে সার্ভিস সেন্টারে যেতে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। এ ছাড়া ইউএনএফপির সহযোগিতায় একটি ফ্যামিলি প্ল্যানিং টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। এর কাজ হল এই কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে পরিবার পরিকল্পনা সেবা নিশ্চিত করার ব্যাপারে সরকারকে দিকনির্দেশনা দেয়া।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের আরো সংবাদ