করোনার সময়েও ছাত্রলীগের অস্ত্রের মহড়া

করোনাকালীন সময়েও সংঘর্ষে জড়িয়েছে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগ। প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে এলাকায় ত্রাস ছড়িয়েছে। পরিতিস্থি নিয়ন্ত্রণে জুড়ী শহরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

শনিবার (৪ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে সদ্য বহিষ্কৃত জুড়ি কলেজ সভাপতির গ্রুপ এবং বর্তমান উপজেলা কমিটির নেতাকর্মীদের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেয় ছাত্রলীগ। এতে জুড়ী বাজারে থমথম অবস্থা বিরাজ করে।

জানা গেছে, ছাত্রলীগ থেকে সদ্য বহিষ্কৃত জুড়ি কলেজ শাখার সাবেক সভাপতি এ আর সাজেদের কর্মী নিজু আহমদকে মারধর করে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাহাব উদ্দিন সাবেলের কর্মীরা। এরপর সাজেদ তার কর্মীদের নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাহাব উদ্দিন সাবেলকে মারধর করেন। সন্ধ্যার পর সাহাব উদ্দিন সাবেল ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল ভূইয়ার নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রসহ নিয়ে জুড়ী বাজারে মহড়া দেন
জুড়ী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত এ আর সাজেদ বলেন, তারা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

জুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল ভূইয়া জানান, আমি ও আমার কমিটির সভাপতি মোটরসাইকেলে ফিরছিলাম। এ সময় আমাদের ওপর হামলা করে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত এ আর সাজেদ ও তার কর্মীরা। আমরা অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিইনি এবং কী কারণে এই হামলা তাও জানি না।

জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার শনিবার (৪ জুলাই) রাত ১১টায় বলেন, ‘ছাত্রলীগ নেতা সাজেদের লোকজন জুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাবেল এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবালকে কিল-ঘুষি মারলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।’

এ বিভাগের আরো সংবাদ