মৃত্যুর মিছিলে ৫ লাখ ১৩ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ৫ লাখ ৮৬ হাজার ছাড়িয়ে

সর্বনাশা করোনায় মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। রোজ লাশের সারিতে যোগ হচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। আক্রান্ত হচ্ছেন সমানতালে। কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না বৈশ্বিক এই মহামারী

ইতিমধ্যে ১ কোটি ৫ লাখ ৮৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন কোভিড-১৯ ভাইরাসে। এই তথ্য ওয়ার্ল্ডওমিটারের।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও প্রাণহানির সর্বশেষ পরিসংখ্যান জানার অন্যতম এই ওয়েবসাইটের তথ্যানুযায়ী, সারা বিশ্বে বুধবার সকাল ১০ টা পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি পাঁচ লাখ ৮৬ হাজার ৩৮১ মানুষ। তাদের মধ্যে বর্তমানে ৪২ লাখ ৭৬ হাজার ৭০১ জন চিকিৎসাধীন এবং তাদের মধ্যে ৫৭ হাজার ৭৮৮ জন (২ শতাংশ) আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। পাঁচ লাখ ১৩ হাজার ৯২৫ জন রোগী মারা গেছেন।

তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন অনেক মানুষ। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে ৫৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৫৫ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও প্রাণহানির সর্বশেষ পরিসংখ্যান জানার অন্যতম এই ওয়েবসাইটের তথ্যানুযায়ী, করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে সেরে উঠেছেন ১১ লাখ ৪৩ হাজার ৩৩৪ জন, ব্রাজিলে সাত লাখ ৯০ হাজার ৪০, রাশিয়ায় চার লাখ ১২ হাজার ৬৫০, ভারতে তিন লাখ ৪৭ হাজার ৮৩৬, চিলিতে দুই লাখ ৪১ হাজার ২২৯, স্পেনে সেরে উঠেছে এক লাখ ৯৬ হাজার ৯৫৮, ইতালিতে এক লাখ ৯০ হাজার ২৪৮, ইরানে এক লাখ ৮৮ হাজার ৭৫৮, জার্মানিতে এক লাখ ৭৯ হাজার ১০০, তুরস্কে এক লাখ ৭৩ হাজার ১১১, পেরুতে এক লাখ ৭৪ হাজার ৫৩৫, মেক্সিকোতে এক লাখ ৩৪ হাজার ৯৫৭, সৌদি আরবে এক লাখ ৩০ হাজার ৭৬৬, পাকিস্তানে ৯৮ হাজার ৫০৩, চীনের মূল ভূখণ্ডে ৭৮ হাজার ৪৭৯, কাতারে ৮১ হাজার ৫৬৪ এবং ফ্রান্সে ৭৬ হাজার ২৭৪ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

এ ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকায় ৭৩ হাজার ৫৪৩ জন, কানাডায় ৬৭ হাজার ৫৯৪ জন, বাংলাদেশে ৫৯ হাজার ৬২৪, সুইজারল্যান্ডে ২৯ হাজার ২০০, সিঙ্গাপুরে ৩৮ হাজার ৫০০, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৩৭ হাজার ৫৬৬, কুয়েতে ৩৭ হাজার ৩০, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১১ হাজার ৬১৩, মালয়েশিয়ায় আট হাজার ৩৫৪ জন এবং অস্ট্রেলিয়ায় সাত হাজার আটজন সুস্থ হয়ে উঠেছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম দেখা দেয়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।

গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারী ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

এ বিভাগের আরো সংবাদ