পার্লামেন্টে লাদেনকে ‘শহীদ’ অ্যাখ্যা ইমরান খানের

পাকিস্তানের পার্লামেন্টে দেয়া এক বক্তৃতায় মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আল-কায়েদার সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে ‘শহীদ’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

বৃহস্পতিবার তেহরিক-ই ইনসাফ দলের এ শীর্ষ নেতা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ২০১১ সালে লাদেনকে হত্যা করে তাকে ‘শহীদ’ করেছে।

বক্তৃতায় ইমরান আল-কায়েদার সাবেক প্রধানকে হত্যায় ওয়াশিংটনের অভিযান বিষয়ে ইসলামাবাদকে কিছু না জানানোর ঘটনায়ও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বলে ডয়েচে ভেলের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ওয়াশিংটনের বিরুদ্ধে অভিযোগের তীর ছুড়ে বলেন, “আমরা তাদের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে পাশে ছিলাম। অথচ তারা এখানে এল, তাকে (লাদেন) হত্যা করল, শহীদ করল, (অভিযানের বিষয়ে) আমাদের কিছু জানাল না উল্টো এখন আমাদের নামেই অবমাননাকর কথা বলছে। এদিকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আমরা ৭০ হাজার মানুষ হারিয়েছে।“

বাজেট অধিবেশনে দেয়া বক্তৃতায় ইমরান পূর্বসূরীদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ‘দহরম মহরমেরও’ তীব্র সমালোচনা করেছেন। তার সরকারই দুই দেশের সম্পর্ককে ‘পারস্পরিক শ্রদ্ধার’ জায়গায় ফিরিয়ে এনেছে বলেও দাবি করেন তিনি।

“যেভাবে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে সমর্থন দিয়েছি, তার বদলে আমাদেরকে অপমান করা হয়েছে। আফগানিস্তানে প্রতিটি ব্যর্থতার জন্য তারা আমাদের দায় দিয়েছে। আফগানিস্তানে জিততে না পারায় তারা এখন আমাদেরকে দোষী বলছে,” বলেন তিনি।

২০১১ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্রের নেভি সিলের সদস্যরা পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে চালানো আচমকা এক অভিযানে সেসময়ের আল-কায়েদা প্রধান লাদেনকে হত্যা করেন। অভিযানের ‘গোপনীয়তা রক্ষায়’ এ বিষয়ে ইসলামাবাদকে কিছুই জানানো হয়নি বলে পরে ওয়াশিংটনের দিক থেকে বলা হলেও, এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের মধ্যে টানাপোড়েন শুরু হয়।

ইসলামাবাদ সন্ত্রাসে মদদ দিচ্ছে- সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রের এমন অভিযোগ দুই দেশের সামরিক ও কূটনৈতিক সম্পর্কে ফাটল ধরিয়েছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

অ্যাবোটাবাদের অভিযানের প্রকাশ্য সমালোচনা এবং লাদেনকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর ‘শহীদ’ অ্যাখ্যা দুই দেশের সম্পর্কের আরও অবনতি ঘটাবে বলেও অনুমান অনেকের।

পার্লামেন্টে ইমরানের বক্তৃতার তীব্র সমালোচনা চলছে পাকিস্তানেও।

দেশটির বিরোধীদলীয় সাংসদ খাজা মোহাম্মদ আসিফ লাদেনকে ‘শহীদ’ অ্যাখ্যা দেয়ার বিরুদ্ধে একহাত নিয়ে বলেছেন, আল-কায়েদার এ সাবেক প্রধানই পাকিস্তানে সন্ত্রাসবাদ নিয়ে এসেছিলেন।

“তিনি (লাদেন) আমাদের দেশকে ধ্বংস করে দিয়েছেন, অথচ প্রধানমন্ত্রী তাকেই শহীদ বলছেন,” বলেছেন আসিফ।

ইমরানের বক্তৃতার সমালোচনা করে পাকিস্তান পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান বিলওয়াল ভুট্টো জারদারি বলেছেন, “লাদেনকে শহীদ অ্যাখ্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী তার নিজের সহিংস সন্ত্রাসবাদের তোষণের ইতিহাসকেই তুলে ধরেছেন।”

এ বিভাগের আরো সংবাদ