ভারতে একদিনে রেকর্ড আক্রান্ত সাড়ে ১৫ হাজার, মোট সংখ্যা ৪ লাখ পেরুলো

ভারতে করোনার লাগাম টানাই যাচ্ছে না। রোববারের তথ্যমতে, আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মহামারি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১৫ হাজারের বেশি মানুষ। একদিনে এটিই ভারতে সর্বাধিক সংক্রমণের রেকর্ড। এতে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ পেরিয়ে গেল।

এমন পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সবাইকে যোগব্যায়াম, প্রাণায়াম করার পরামর্শ দিয়েছেন। রোববার সকালে তিনি বলেছেন, করোনা আমাদের শ্বাসযন্ত্রে আক্রমণ করে। তাই শ্বাসতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে প্রাণায়াম করতে হবে সবাইকে। খবর এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় রোববার নিয়মিত ব্রিফিংয়ে জানায়, আগের ২৪ ঘণ্টায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৪১৩ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত হলেন ৪ লাখ ১০ হাজার ৪৬১ জন। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৩০৬ জন। এতে এখন পর্যন্ত ১৩ হাজার ২৫৪ জনের মৃত্যু হলো। এছাড়া এ পর্যন্ত ২ লাখ ২৭ হাজার মানুষ সুস্থ হয়েছেন। সুস্থতার হার ৫৫.৪৮ শতাংশ।

এদিকে রেকর্ড গড়ে একদিনে ১ লাখ ৯০ হাজার মানুষের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ভারতে। এ নিয়ে মোট ৬৮ লাখ মানুষের নমুনা গত তিন মাসে পরীক্ষা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নমুনা পরীক্ষা ও পজিটিভ সংক্রমণের অনুপাত এখন ৭.৬৪ শতাংশ।

এদিকে, দেশে সর্বাধিক করোনা রোগী আছে মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লি এবং গুজরাট- এই ৪ রাজ্যে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত মহারাষ্ট্র রাজ্যে এ পর্যন্ত ১ লাখ ২৮ হাজার মানুষ শনাক্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ৫ হাজার ৮৯৩ জন।

এরপরই রয়েছে তামিলনাড়ু রাজ্য। এ রাজ্যে মোট আক্রান্ত ৫৬ হাজার ৮৪৫ জন। তবে মারা গেছেন ৭০৪ জন। এদিকে লকডাউন শিথিলের পর রাজধানী দিল্লিতে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। সেখানে এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬ হাজার ৭৪৬ জন এবং মারা গেছেন ২ হাজার ১১২ জন। চতুর্থ স্থানে থাকা গুজরাটে মোট আক্রান্ত ২৬ হাজার ৬৮০ জন। এ রাজ্যে মারা গেছে ১ হাজার ৬৩৮ জন। এছাড়া উত্তরপ্রদেশে ১৬ হাজার ৫৯৪, রাজস্থানে ১৪ হাজার ৫৩৬ জন, পশ্চিমবঙ্গে ১৩ হাজার ৫৩১, মধ্যপ্রদেশে ১১ হাজার ৭২৪ ও হরিয়ানায় ১০ হাজার ২২৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে করোনায় আক্রান্ত দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈনকে প্লাজমা থেরাপি দেওয়া হয়েছে। তার প্রাথমিক রিপোর্ট নেগেটিভ ছিল। কিন্তু মঙ্গলবার নতুনভাবে নমুনা পরীক্ষার পর বুধবার ফের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। এর পরই তাকে দিল্লির এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রচণ্ড জ্বরসহ শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা ছিল স্বাস্থ্যমন্ত্রীর। নিউমোনিয়ার উপসর্গও ধরা পড়েছে। তার আরোগ্য কামনা করে টুইট করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

এ বিভাগের আরো সংবাদ