চীনা পণ্য বর্জনের ক্যাম্পেইনে বিপাকে আইপিএল, বৈঠকের ডাক

গত মঙ্গলবার লাদাখ সীমান্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহতের ঘটনায় চীন-ভারত সম্পর্কে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সেই ঘটনার জেরে দলমত নির্বিশেষে চীনা পণ্য বর্জনের ডাক দিচ্ছেন ভারতীয়রা।

অনেকে চীনের তৈরি ব্যবহার্য মোবাইল, টিভিসহ নানা ইলেকট্রনিক্স পণ্য ভেঙে ফেলছেন।

এমন উত্তেজনাময় পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়েছে ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রিকেট লিগ আইপিএলের আয়োজকরা।

কেননা আইপিএলে চীনা মোবাইল প্রস্তুতকারক কোম্পানি ভিভো বিনিয়োগ করেছে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা।

তাই আবেগে তাড়িত না হয়ে আইপিএলের পৃষ্ঠপোষকতায় চীনা কম্পানির অর্থায়ন বন্ধ হবে না বলে গত ১৮ জুন সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কোষাধ্যক্ষ অরুন ধুমাল।

তার এমন বক্তব্যের পর ভারতের সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার ঝড় আরও তীব্রতর হয়।

যে কারণে ধুমালের এমন মন্তব্যের ৩৬ ঘণ্টার মধ্যেই নিজেদের অবস্থান বদলেছে আইপিএল আয়োজকরা।

এবার তারা জানিয়েছে, সীমান্তে সংঘর্ষের বিষয়টি মাথায় রেখে আইপিএলের সব স্পন্সরদের ব্যাপারে শিগগিরই বিস্তারিত আলোচনায় বসবেন।

শুক্রবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে আইপিএলের অফিসিয়াল অ্যাকাউন্ট থেকে এমন বার্তাই দেয়া হলো।

যেখানে লেখা হয়েছে, ‘সীমান্তে সংঘর্ষের ফলে আমাদের সাহসী সেনাদের মৃত্যুর বিষয়টি মাথায় রেখে, আইপিএল আয়োজক কমিটি আগামী সপ্তাহে একটি বৈঠক ডেকেছে। যেখানে আইপিএলের বিভিন্ন স্পন্সর নিয়ে আলোচনা হবে।’

এমন বার্তা দিয়ে এখনও স্পষ্ট নয় যে, চীনা স্পনসর বর্জন করবে কিনা আইপিল কর্তৃপক্ষ।

তবে সীমান্তে ভারতীয় সেনা হত্যার জেরে দেশজুড়ে চলা চীন বিরোধী উত্তেজনায় চলা সমালোচনাকে কিছুটা হলেও থামানোর প্রচেষ্টা করেছে আইপিএল।

ভারতের সংবাদমাধ্যম জি নিউজ জানিয়েছে, আইপিএলের টাইটেল স্পন্সর চীনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা ভিভো। ২০১৮ সাল থেকে চীনা এই সংস্থাটি আইপিএলে চুক্তিবদ্ধ। যার মেয়াদ শেষ হবে ২০২২ সালে।

যে কারণে এ বিষয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে বিসিসিআইকে।

এ বিষয়ে অরুন ধুমালের ভাষ্য ছিল, কোনো মতেই আইপিএলে চীনা কোম্পানির অর্থায়নকে ‘না’ বলবে না বিসিসিআই। কারণ এতে লাভ ভারতেরই হচ্ছে। তাই আইপিএলের টাইটেল স্পন্সর হিসাবে চীনা কম্পানি ভিভোই থাকছে।

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

এ বিভাগের আরো সংবাদ