ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মেধাবী ছাত্র সুশান্ত যেভাবে হলেন বলিউড স্টার

মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মেধাবী ছাত্র সুশান্ত সিংহ রাজপুতের ক্যারিয়ারের মোড় ঘুরেছিল শামক দাভরের ড্যান্স একাডেমিতে ভর্তির পর।

২০০৮ সালে ‘কিস দেশ মে হ্যায় মেরা দিল’ ধারাবাহিকে পার্শ্বচরিত্র দিয়ে অভিনয়ে পথচলা শুরু। এর পরেই একতা কাপুরের চোখে পড়ার ফলে ‘পবিত্র রিশতা’র হিট জার্নি।

নায়িকা অঙ্কিতা লোখণ্ডের সঙ্গে প্রেমের শুরুও সেখান থেকেই। এর পর কয়েকটি ড্যান্স রিয়েলিটি শোয়ে অংশগ্রহণ ও ২০১৩ সালে প্রথম ছবি ‘কাই পো চে’র মুক্তি। আর পেছনে ফিরতে হয়নি সুশান্তকে।

আকাশের তারা দেখতে ভালোবাসতেন সুশান্ত। রিসার্চের জন্য বাড়িতেই বসিয়েছিলেন এক ভার্চুয়াল রিয়েলিটি সিস্টেম আর এক বিশাল টেলিস্কোপ। সেসব পড়ে রইল যথাস্থানে।

মাত্র ৩৪ বছর বয়সে ফুরিয়ে গেল অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের জীবন। রোববার দুপুরে বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে অভিনেতার ঝুলন্ত দেহ। সঙ্গে পাওয়া গেছে কিছু প্রেসক্রিপশন।

ধারণা করা হচ্ছে, অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। দিনকয়েক আগেই অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে সুশান্তের সাবেক ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের। দুটো মৃত্যুর মধ্যে কি আদৌ যোগসূত্র রয়েছে?

বলিউডের অন্যতম সম্ভাবনাময় এই অভিনেতার চরম পথ বেছে নেয়ার কারণ কি অবসাদ? মুম্বাই পুলিশের বয়ান অনুযায়ী, প্রাথমিক তদন্তে আত্মহত্যার সম্ভাবনাই জোরালো।

তবে সোমবার তার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরই মৃত্যুর নিশ্চিত কারণ জানা যাবে। পটনা থেকে তার পরিবার মুম্বাই পৌঁছলে সোমবার অভিনেতার শেষকৃত্য সম্পন্ন হওয়ার কথা।

‘সুইসাইড ইজ় নট দ্য সলিউশন’… বড় পর্দায় তার শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘ছিছোরে’র এই সংলাপটি যেন ফিরে আসছে সবার কাছে।

শনিবার রাতেও ছেলের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছিলেন সুশান্তের বাবা। পরিবার, প্রতিবেশী, বন্ধু, সহকর্মীদের প্রায় কেউই আঁচ পাননি, বিগত কয়েক মাস ধরে অবসাদের সঙ্গে লড়াই এত কঠিন হয়ে গেছে সুশান্তের জীবন।

একতা কাপুরের শেয়ার করা স্ক্রিনশটে উঠে এসেছে, এক সপ্তাহ আগেও কাজ নিয়ে কথা বলেছেন তারা। এ বছর কোনো নতুন ছবিতে সই করেননি অভিনেতা। তবে অফার কম ছিল না তার হাতে, বিশেষ করে শেষ ছবি ‘ছিছোরে’ হিট হওয়ার পর থেকে।

মাসকয়েক আগে ভাড়া নেয়া নতুন ফ্ল্যাটে একাই থাকতেন সুশান্ত, মাসিক ভাড়া ছিল সাড়ে ৪ লাখ রুপি। লকডাউনে কখনও এক্সারসাইজ়, কখনও কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের নতুন কোডিং শেখা, আবার কখনও নিজের প্রিয় টেলিস্কোপে চোখ রাখার নানা পোস্টে ভরে ছিল তার ইনস্টাগ্রাম।

তবে গত ৩ জুনের পর থেকে আর কোনো পোস্ট করেননি সুশান্ত। সেই পোস্ট ছিল তার মাকে নিয়ে। ২০০২ সালে মাকে হারানোর পর জীবন ওলটপালট হয়ে গিয়েছিল তার।

‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’, ‘পিকে’র পর দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায় ধুতি পরিয়ে বাঙালি ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সীরূপে হাজির করলেন সুশান্তকে।

তবে যে চরিত্রের জন্য মনে থেকে যাবেন সুশান্ত, তা এমএস ধোনি। খড়গপুর আইআইটির মাঠে তার ‘মাহি’ হয়ে ওঠার অক্লান্ত পরিশ্রম মনে করছিলেন সাবেক ক্রিকেটার কিরণ মোরে।

প্র্যাকটিসে দেরি করে আসার জন্য তার কাছে বকুনিও খেতেন অভিনেতা। ‘রাবতা’র শুটিং চলাকালীন কৃতী শ্যাননের সঙ্গে জড়িয়ে যায় সুশান্তের নাম। তত দিনে ভেঙে গেছে অঙ্কিতার সঙ্গে পার্টনারশিপ।

সম্প্রতি সম্পর্কে ছিলেন অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে। তবে সুশান্তের মৃত্যুতে তাদের কেউই সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনো পোস্ট করেননি।

‘রাবতা’ তেমন না চললেও ‘কেদারনাথ’-এ ফের ঘুরে দাঁড়ালেন সুশান্ত। ক্লাইম্যাক্সে বন্যার দৃশ্যে সুশান্তের একের পর রিটেক দেয়ার কথা উঠে এলো ছবির ডিওপি তুষারকান্তি রায়ের কথায়, ‘পানির তোড়ে ওর হাতটা ধরে রেখেছিলাম। যদি আবার হাতটা ধরতে পারতাম…।’

তথ্য সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

এ বিভাগের আরো সংবাদ