গণস্বাস্থ্যের ডা. জাফরুল্লাহর করোনা শনাক্ত

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। রোববার (২৪ মে) গণস্বাস্থ্যের ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় তার করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।

সোমবার (২৪ মে) সন্ধ্যায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমি বাসায় আইসোলেশনে আছি। আমার থুথু পরীক্ষা করা হয়েছে। সেখানে এই সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়া যায়।’

উনি পিসিআর মেশিনে করোনা টেস্ট করাননি বলেও জানিয়েছেন। আর করার প্রয়োজন নেই বলেও দাবি করেন ডা. জাফরুল্লাহ।

এদিকে সরকারের অনুরোধক্রমে গণস্বাস্থ্যের কিটের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল স্থগিত করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এর আগে সোমবার দুপুরে দিকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মঙ্গলবার (২৬ মে) থেকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিটের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হবে। আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে প্রতিদিন ৫০ জন ব্যক্তির ওপর এই ট্রায়াল চালানো হবে।

জিআর কোভিড-১৯ ডট ব্লোট প্রকল্পের কো-অর্ডিনেটর ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দকারের সই করা ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বিভিন্ন মিডিয়াতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র তাদের জি আর কোভিড ১৯ র‌্যাপিড ডট ব্লট কিটের পরীক্ষা শুরু করবে বলে যে খবর বেরিয়েছে তা সঠিকভাবে উল্লেখ করা হয়নি।’

‘আমাদের বক্তব্য হলো- গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি) অনুমোদিত জিআর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড ডট ব্লট কিটের অভ্যন্তরীণ গুণগত মান পরীক্ষার (ইন্টারনাল ভ্যালিডেশন) জন্য ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অংশ হিসেবে ২৬ মে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১২ টার মধ্যে কোভিড-১৯ এর লক্ষণ আছে এরকম ৫০ জন রোগীর কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হবে’— বলেন ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দরকার।

তিনি বলেন, ‘বিএমআরসি অনুমোদিত নিয়মে, আগে আসলে আগে নেওয়া হবে। এই ভিত্তিতে লালা এবং রক্ত উভয় বা যেকোনো একটি নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এই নমুনা সংগ্রহ গবেষণার অংশ, কোনো সেবা বা রোগ নির্ণয় নয়।’

এ বিভাগের আরো সংবাদ