ফরিদগঞ্জে জামাতার ছুরিকাঘাতে স্ত্রীর পর প্রাণ গেল শাশুড়ির

ফরিদগঞ্জে জামাতার হাতে স্ত্রীকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতের ঘটনায় এবার প্রাণ গেল শাশুড়ি পারভীন আক্তারের।

ঘটনার দিন মেয়ে তানজিনা আক্তার রিতুকে বাঁচাতে মা পারভীন এগিয়ে এলে তাকেও ছুরিকাঘাতে আহত করে জামাতা আল মামুন মোহন।

চাঁদপুর সদর হাসপাতালে আহত পারভীনের দুদিন চিকিৎসা শেষে অবস্থার অবনতি হয়। শুক্রবার ভোরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে নেয়ার পথে মারা যান তিনি।

এদিকে ঘাতক আল মামুন মোহনকে বৃহস্পতিবার বিকালে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়ার জন্য আদালতে হাজির করা হয়। তিনি অস্বীকার করলে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেন বিজ্ঞ আদালত।

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আবদুর রকিব জানান, রিতুর ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার বিকালে তার লাশ দাফন করা হয়। তার শাশুড়ির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুরে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত রিতুর চাচা লিয়াকত খান বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। ঘাতক মোহন প্রাথমিকভাবে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ মে ইফতারের সময়ে উপজেলার গৃদকালিন্দিয়া এলাকায় এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড ঘটে।

এদিন পরকীয়ায় লিপ্ত সন্দেহে স্ত্রীকে জেরা করেন মোহন। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে রিতুকে উপর্যুপরি ছুরিকাহত করেন তিনি।

মেয়ের আত্মচিৎকারে মা পারভীন আক্তার ছুটে এলে তাকেও আঘাত করেন মোহন।

এ সময় পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে আশপাশের লোকজন টের পেয়ে মোহনকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

আহত রিতুকে দ্রুত ফরিদগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ