ওসমানীনগরে যুবক খুনের ঘটনা মামলা, গ্রেপ্তার ৫

সিলেটের ওসমানীনগরের পশ্চিম পৈলনপুর ইউপির ঈশাগ্রাই গ্রামে প্রতিপক্ষের ছুলফির আঘাতে শিপন মিয়া নামের এক যুবক খুন হয়েছেন। এই খুনের ঘটনায় ঈশাগ্রাই গ্রামের মৃত দরছ উল্যার ছেলে ধন মেম্বারকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৭ মে) সকালে নিহত শিপনের বড় ভাই রিপন মিয়া বাদী হয়ে ধন মেম্বারসহ ২৭জনকে আসামি করে ওসমানীনগর থানায় হত্যা (মামলা নং-০২) দায়ের করেন।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এজাহারভূক্ত ৮ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ঈশাগ্রাই গ্রামের মৃত রহিম উল্লার ছেলে আলা মিয়া (৬০), একই গ্রামের তার ভাই আব্দুল হেকিম (৭৫), মৃত বাদশা মিয়ার ছেলে শফিক মিয়া (৫০), শফিক মিয়ার ছেলে আব্দুল কাইয়ুম (১৮), আব্দুল শহিদ (২৫), মৃত গেদা মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়া (৩৫) এবং উমরপুর ইউপির লামা উসবপুর গ্রামের মৃত ছানা মিয়ার ছেলে জুবায়ের আহমদ।

গ্রেপ্তারকৃতদের বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টার দিকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে পুলিশ।

অপরদিকে আজ বিকেলে নিহত শিপনের লাশের ময়না তদন্ত শেষে তার পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেছে পুলিশ। আজ রাত সাড়ে ৭টায় ঈশাগ্রাই গ্রামের নিজ বাড়িতে নামাজে জানাজা শেষে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে শিপনের লাশ দাফন করা হবে।

এদিকে শিপন হত্যা মামলার বাদী নিহত শিপনের বড় ভাই পুলিশের নিকট অভিযোগ করেছেন, আসামি পক্ষের লোকজনরা বিশেষ করে আসামি পক্ষের মহিলার তাদের বসত ঘরের জিনিসপত্র পিকআপ ভ্যান দিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। বসতঘরের চালাসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র নিজেরা ভাঙচুর করে বাদী পক্ষের উপর সাজানো লুটপাটের মামলা করার পায়তারা করছে।

মামলার বাদী নিহত শিপনের বড় ভাই রিপন মিয়া বলেন, ধন মেম্বার আমার ভাইকে খুন করল এখন উল্টো তাদের লোকজন নিজেদের বাড়ি ঘর ভাঙচুর করে আমাদের উপর সাজানো লুটপাটের মামলা করার চেষ্টা করছে। এ ঘটনাটি আমি ওসমানীনগর থানার ওসি রাশেদ মোবারক, আমাদের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন গেদাই ও পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষকে অবহিত করে দেখিয়েছি। ইউপি চেয়ারম্যান নিজেই খবর পেয়ে আজ বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে এসে আসামি পক্ষের মহিলাদের কর্মকাণ্ডের ছবি ও ভিডিও করে গেছেন।

পশ্চিম পৈলনপুর ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ এ মতিন গেদাই বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে আমি নিজে গিয়ে দেখেছি আসামি পক্ষের লোকজন তাদের নিজের মালপত্র নিয়ে যাচ্ছে। তারা আমাকে জানিয়েছে নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে তারা তাদের মালপত্র নিয়ে যাচ্ছে, আমিও আসামি পক্ষের মহিলাদের বলেছি তোমাদের নিরাপত্তা পাবে সেখানেই মালপত্র নিয়ে যাও।

ওসমানীনগর থানার ওসি রাশেদ মোবারক বলেন, ঈশাগ্রাই গ্রামে শিপন হত্যার ঘটনায় তার ভাই রিপন মিয়া বাদী হয়ে ধন মেম্বারকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামি পক্ষের লোকজন তাদের বাড়ির মালামাল নিয়ে যাওয়া ও ভাঙচুর করে বাদী পক্ষকে লুটপাটের মামলা দিয়ে ফাঁসানোর পায়তারা করছে বলে মামলার বাদী রিপন মিয়া আমাকে মৌখিক ভাবে জানিয়েছেন। হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া ৮ আসামিকে আজ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ধন মেম্বারসহ মামলার অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ