হিজবুল্লাহকে নিষিদ্ধের ঘটনায় জার্মানির রাষ্ট্রদূতকে তলব লেবাননের

মার্কিন-ইসরাইলি চাপে জার্মানিতে লেবাননের শিয়া মিলিশিয়া গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর সব তৎপরতা নিষিদ্ধ এবং তাদের সন্ত্রাসী সংস্থা হিসেবে আখ্যায়িত করার প্রতিবাদে দেশটির রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে লেবাননের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার লেবাননের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাসিফ হিত্তি দেশটিতে নিযুক্ত জার্মানির রাষ্টদূত জর্জ বার্গলিনকে তলব করে হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে জার্মানির ঘোষণার বিষয়ে সঠিক ব্যাখ্যা দাবি করেন। খবর আল আরাবিয়ার।

লেবাননের পররষ্ট্রমন্ত্রী হিত্তি তার দেশের রাজনীতির ক্ষেত্রে হিজবুল্লাহর প্রভাবশালী ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বলেন, লেবাননের জনগণ এবং সংসদের এক বিরাট অংশ প্রতিনিধিত্ব করছে এ সংগঠনটি।

এ সময় জার্মানি হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে কালোতালিকাভুক্ত করেনি দাবি করে বার্গলিন বলেন, জার্মানির ভূখণ্ডে প্রতিরোধকামী সংগঠনটির কার্যক্রম কেবল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ এপ্রিল মার্কিন-ইসরাইলি চাপে জার্মানিতে লেবাননের শিয়া মিলিশিয়া গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর সব তৎপরতা নিষিদ্ধ ও তাদের সন্ত্রাসী সংস্থা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল দীর্ঘদিন ধরে এমনটিই চেয়ে আসছিল।

এক বিবৃতিতে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, হিজবুল্লাহর কার্যক্রম ফৌজদারি আইনের লঙ্ঘন করেছে। সংগঠনটি আন্তর্জাতিক সমঝোতার বিরোধিতা করে আসছে।

কাজেই জার্মানিতে হিজবুল্লাহর জমায়েত, প্রকাশনা কিংবা মিডিয়া নিষিদ্ধ থাকবে। সংগঠনটির সম্পদও বাজেয়াপ্ত হতে পারে।

বিবৃতিতে বলা হয়, হিজবুল্লাহ একটি বিদেশি সংগঠন। কাজেই তাদের নিষিদ্ধ ও বিলুপ্তি ঘোষণা অসম্ভব কিছু না।

নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের ধারণা, হিজবুল্লাহর উগ্র শাখার সঙ্গে সম্পৃক্ত এক হাজার ৫০ জন জার্মানিতে অবস্থান করছেন।

জার্মানিতে শিয়া মিলিশিয়া গোষ্ঠীকে নিষিদ্ধ করতে দীর্ঘদিন ধরে চাপ দিয়ে আসছিল যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল। কাজেই সংগঠনটিকে নিষিদ্ধের এই উদ্যোগ প্রশংসার চোখে দেখছে তারা।

এ বিভাগের আরো সংবাদ