তাহিরপুরে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক, আটক ১৩

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে আধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে দুই ঘন্টাব্যাপী দুপক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। এ ঘটনায় তাহিরপুর থানা পুলিশ দুপক্ষের ১৩ জনকে আটক করেছে।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) সকালে উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের নোয়ানগর গ্রামের এ ঘটনাটি ঘটে।

আটককৃতরা হলেন- মাহমুদুল হাসান, মুসাব্বির, রাসেল, হোসেন, সাকিব, খোরশেদ আলী, ডালিম, মজিবুর, খছরুল, কাশেম, লোকমান, আব্দুস ছালাম, মোকাবির।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের নোয়ানগর গ্রামের কপিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, শাহাজ উদ্দিন, খোরশেদ আলী, আজগর আলী গ্রামে নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করার জন্য জয়নাল মিয়া ও তার সঙ্গীদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার রাতে জয়লান মিয়ার ধানের খলায় কপিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, আজগর আলী ও শাহাজ উদ্দিনের লোকজন আগুন লাগায় বলে অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে বুধবার সকাল কপিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, শাহাজ উদ্দিন, খোরশেদ আলী, আজগর আলীর সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জয়নাল মিয়াকে খলায় মারধর করার পর জয়লান মিয়ার লোকজন খবর পেয়ে আসলে আজগর আলী গ্রুপের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে জয়নাল মিয়ার লোকজনকে গুরুতর আহত করে।

খবর পয়ে তাহিরপুর থানার এসআই দীপংকর, মনিতুষ পাল, জহুর লাল, কবির, এএসআই বেলালসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ সময় ১৩জনকে আটক করে তাহিরপুর থানার আনা হয়।

গুরুতর আহতরা হলেন, আবুল বাসার (১৮), সামছুল ইসলাম (৪০), খছরুল মিয়া (২৫), টিটন মিয়া (২০), শফিকুল ইসলাম (১৭), হাবিবুর মিয়া (৪০), এরশাদ মিয়া (৩০), শাফিনুর মিয়া (৪০), রুমেনা বেগম (৩০), স্বপন মিয়া (২৫), মোছাব্বির মিয়া (১৭), ডালিম মিয়া (২৮), আব্দুস ছালাম (২৪), হাবিবুর (৩৫), রোমেনা বেগম (৪০), রাহুল (২০), জনি (২৬), আলী নেওয়াজ, হযরত আলী, আজগর আলী, জিয়াউর রহমান, মুন্না (২৭), হেনরা বেগম (৩৮) সহ অর্ধশতাধিক
গুরুতর আহত হন।

গুরুতর আহতদের মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ১৯ জনকে রেফার করা হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, কপিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, শাহাজ উদ্দিন, খোরশেদ আলী, আজগর আলীর পেশা হাওরে মাছ ধরা আর জয়নাল মিয়া লোকজনের পেশা কৃষিকাজ। এখন কৃষি কাজে ব্যাঘাত করতে ও আধিপত্য বিস্তার করার জন্যই এই সংঘর্ষ বাধান কপিল উদ্দিন, হাফিজ উদ্দিন, শাহাজ উদ্দিন, খোরশেদ আলী, আজগর আলী ও তার লোকজন।

তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতিকুর রহমান এই ঘটনায় সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার পর পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় ১৩ জনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ