প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সমস্যার সমাধান

করোনাভাইরাসের টেস্টিং কিটের পদ্ধতির সঠিকতা নির্ধারণের জন্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে দরকার ছিল কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর রক্তের নমুনা, কিন্তু সেটা তাদের দেওয়া হচ্ছে না অভিযোগ করেছিলেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। করোনায় আক্রান্ত রোগীর রক্তের জন্য টানা আটদিন সকাল-বিকেল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিনিধি যাওয়ার পরও সেটা দেওয়া হয়নি, এমন অভিযোগ ছিল তার। শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অভিযোগ করার পর সমাধান এসেছে। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে গণস্বাস্থ্যের এই সমস্যার সমাধান হয়েছে।

বুধবার (২২ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে করোনা রোগীর রক্ত নেয়ার অনুমোদনের চিঠি পেয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেছেন, ‘আজ ৮ দিন ধরে রোজ সকাল-বিকেল যাওয়ার পরেও তারা রক্ত দেয়নি। পরে বাধ্য হয়ে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে অভিযোগ করেছি। একটা গবেষণা করতে হলে তো রোগীর পায়খানা, প্রস্রাব, রক্ত লাগে। এই প্রথম এত বড় গবেষণা বাংলাদেশে হচ্ছে। করোনা আক্রান্ত রোগীর রক্ত দেবেন না, এটা তো হয় না।

তিনি বলেন, একটু আগে অনুমোদনের চিঠি পেয়েছি। এখন অনুমোদনপত্র নিয়ে যাব, রক্ত এনে গবেষণা সম্পন্ন করে ২৫ এপ্রিল সরকারকে স্যাম্পল দিয়ে দেব।

এরআগে নমুনা দেওয়ার কর্তৃপক্ষ সম্পর্কে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আক্রান্ত রোগীর নমুনা তো দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইডিসিআর)। কিন্তু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতি না পেলে ওরা তো দিতে পারে না।’

গত ৭ এপ্রিল আইইডিসিআরের কাছ থেকে পাঁচ জন রোগীর রক্তের নমুনা পেয়েছিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। আরও নমুনা প্রয়োজন হলো কেন— এমন প্রশ্নে ডা. জাফরুল্লাহর উত্তর, ‘যত বেশি নমুনা, তত বেশি গবেষণা। যত বেশি গবেষণা, তত বেশি নিশ্চিত সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার সুযোগ। যে পদ্ধতি নিয়ে আমরা দেশ-বিদেশে যেতে চাই, সেটির ব্যাপারে তো শতভাগ নিশ্চিত হতে হবে।’

জানা গেছে, প্রথম দফায় চীন থেকে আনা রিএজেন্ট দিয়ে ‘জিআর কোভিড-১৯ ডট ব্লোট’ প্রকল্পের আওতায় এরই মধ্যে ১০ হাজার স্যাম্পল তৈরির কাজ প্রায় শেষ করে ফেলেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। সবকিছু ঠিক থাকলে ২৫ এপ্রিল সরকারের কাছে স্যাম্পল হস্তান্তরের কথা রয়েছে।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘প্রথম দফায় আমরা যে ১০ হাজার স্যাম্পল তৈরি করেছি, সেগুলো আগামী ২৫ এপ্রিল সরকারকে দিয়ে দেবো। দেওয়ার আগে আরও পরীক্ষার জন্য আরও ১০ জন আক্রান্ত রোগীর রক্তের নমুনা চেয়েছি।’

উল্লেখ, প্রথম দফায় তৈরি ১০ হাজার স্যাম্পল দেশি-বিদেশি ১০টি প্রতিষ্ঠানের হাতে তুলে দিতে চায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। এদের মধ্যে আইইডিসিআর, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিডিসি, বাংলাদেশ সরকারের ওষুধ প্রশাসন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতাল ও আইসিডিডিআরবি অন্যতম।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্দেশ্য সম্পর্কে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের মূল লক্ষ্য দেশের মানুষের সেবা। দেশের মানুষের জন্যই আমরা গবেষণা করছি। তবে বিভিন্ন দেশ আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। দেশের চাহিদা পূরণের পর সম্ভব হলে বিদেশেও স্যাম্পল সরবরাহ করব।’

 

এ বিভাগের আরো সংবাদ