টয়লেটে লুকিয়েছিলেন করোনা আক্রান্ত রোগী, খুঁজে বের করেন ওসি

সোমবার হবিগঞ্জ জেলায় ১০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হয়। এ ১০ জনের মধ্যে সাতজনই ছিলেন হোম কোয়ারেন্টিনে। রোগী সনাক্ত হওয়ার পর প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা রোগী ও তাদের পরিবারকে আরও সচেতন করতে তাদের বাড়িতে যান।

এরই ধারাবাহিকতায় রাতেই আজমিরীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোশারফ হোসেন তরফদার, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলীসহ আরও কয়েকজন ছুটে যান আজমিরীগঞ্জের করোনা সনাক্ত হওয়া এক রোগীর বাড়িতে।

তবে তার বাড়িতে গিয়ে বিপাকে পড়েন প্রশাসনের লোকজন। তারা আক্রান্ত ব্যক্তিকে ডেকে দিতে বললে তার স্ত্রী জানান, এই বাড়ি আক্রান্তের না। তিনি এই নামের কাউকে চিনেন না। প্রায় আধঘন্টা সময় ধরে ওসি ও প্রকল্প কর্মকর্তাকে তিনি মিথ্যা তথ্য দিয়েই যাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে তারা প্রতিবেশী এক বৃদ্ধার মাধ্যমে জানতে পারেন তিনিই করোনা আক্রান্ত রোগীর স্ত্রী।

এ সময় ওসি ধমক দিলে বাড়ির লাগোয়া টয়লেট থেকে বের হয়ে আসেন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি। তিনি জানান, করোনার কোন উপসর্গ তার মাঝে নেই।

এ ব্যাপারে আজমিরীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোশারফ হোসেন তরফদার ঘটননার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জালাল মিয়া ভয়ে পালানোর চেষ্টা করছিল। আমরা তাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে আইসোলেশনে পাঠিয়েছি।। এই উপজেলার বদলপুর গ্রামে আরেকজন নারীর করোনা পজেটিভ এসেছে। তিনি নারায়নগঞ্জ থেকে এসেছেন। তিনি শুরু থেকেই আমাদের দেয়া উপদেশ মেনে চলেছেন। তাকেও হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ