সন্তানকে যেভাবে নামাজে অভ্যস্ত করবেন

 

ঈমানের পর নামাজই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজকে মুসলিম ও অমুসলিমের মধ্যে পার্থক্যকারী আখ্যা দিয়ে বলেছেন, ‘মুমিন ব্যক্তি ও মুশরিক-কাফিরের মধ্যে পার্থক্য নামাজ ত্যাগ।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৮২)

ইসলাম শুধু নামাজ আদায় নয়, বরং পরিবার ও সমাজে নামাজ প্রতিষ্ঠার নির্দেশও দিয়েছে। আল্লাহ বলেন, ‘আপনি আপনার পরিবারকে নামাজের নির্দেশ দিন এবং তার ওপর দৃঢ় থাকুন।’ (সুরা : ত্বহা, আয়াত : ১৩২)

 

সন্তানকে কেন নামাজে অভ্যস্ত করতে হবে

শৈশব থেকে সন্তানকে নামাজে অভ্যস্ত করে না তুলে ভবিষ্যতে সে নামাজের প্রতি যত্নবান হতে পারবে না। আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, ‘তোমরা সন্তানদের নামাজের প্রতি যত্নবান হও এবং তাদের ভালো কাজে অভ্যস্ত করো। কেননা কল্যাণ লাভ অভ্যাসের ব্যাপার।’ (সুনানে বায়হাকি, হাদিস : ৫০৯৪)

 

এ ছাড়া শিশুর জীবনের গতিপথ নির্ধারণে পারিবারিক শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। ইমাম গাজালি (রহ.) বলেন, শিশু মা-বাবার কাছে আমানত এবং তার অন্তর মূল্যবান মণিমুক্তাতুল্য। তা শূন্য ক্যানভাসের মতো পবিত্র ও নির্মল। তা যে কোনো চিত্রের জন্যই উপযোগী এবং তাকে যে দিকে ইচ্ছা ফেরানো যায়। তাকে যদি ভালো কাজ শিক্ষা দেওয়া হয়, তবে সে দুনিয়া ও আখিরাতের সৌভাগ্যবান হবে। আর যদি তাকে মন্দ কাজে অভ্যস্ত করা হয় বা পশুর মতো অবজ্ঞা ও উপেক্ষা করা হয়, তবে সে হতভাগ্য ও ধ্বংস হবে। শিশুর রক্ষণাবেক্ষণ হলো তাকে আদব-কায়দা, শিষ্টাচার ও উন্নত চারিত্রিক গুণাবলি শিক্ষা দেওয়া। (ইউসুফ আল হাসান, আল ওয়াজিজ ফিত-তারবিয়্যাহ, পৃষ্ঠা-২)

 

নামাজে অভ্যস্ত করতে শরিয়তের নির্দেশনা

সন্তান বালেগ হয়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে তাকে নামাজের নির্দেশ দিতে বলেছে ইসলাম। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা তোমাদের সন্তানদের সাত বছর বয়সে নামাজের নির্দেশ দাও। তাদের বয়স ১০ বছর হওয়ার পর (প্রয়োজনে) নামাজের জন্য প্রহার করো এবং তাদের বিছানা পৃথক করে দাও।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৯৫)

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) বলেন, সন্তান যখন ডান ও বাঁ পার্থক্য করতে শেখে, তখন তাকে নামাজ শেখাও। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস : ৩৫০৪)

 

যেভাবে নামাজে অভ্যস্ত করবেন

সন্তানকে নামাজে অভ্যস্ত করতে ইসলামী শরিয়তের কিছু নির্দেশনাও রয়েছে। যার কয়েকটি হলো—

১. নিজে নামাজে যত্নবান হওয়া : শিশুরা বড়দের দেখে শেখে। তাই সন্তানকে নামাজে অভ্যস্ত করার প্রথম শর্ত মা-বাবা ও অভিভাবক নিজেরা নামাজের প্রতি যত্নবান হওয়া। নতুবা শুধু উপদেশ খুব বেশি ফলপ্রসূ হবে না। আল্লাহ বলেন, ‘হে মুমিনরা! তোমরা যা করো না, তোমরা তা কেন বলো? তোমরা যা করো না তোমাদের তা বলা আল্লাহর কাছে অতিশয় অসন্তোষজনক।’ (সুরা : সফ, আয়াত : ২-৩)

 

২. নামাজ পড়ার সময় সন্তানকে পাশে রাখা : মা-বাবা যখন নামাজ আদায় করবে সন্তানকে পাশে রাখবে। যেন সন্তান তার অনুকরণ করে। রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজের সময় হাসান ও হুসাইন (রা.)-কে সঙ্গে রাখতেন বলে হাদিসের বর্ণনায় পাওয়া যায়। কাতাদা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁর কন্যা জয়নব ও আবুল আসের কন্যা উমামাকে কোলে নিয়ে নামাজ আদায় করেছিলেন। যখন তিনি সিজদা দিতেন তাকে নামিয়ে রাখতেন এবং দাঁড়ালে তাকে কোলে নিতেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৫১৬)

 

৩. বুঝমান সন্তানকে মসজিদে নেওয়া : রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর যুগে বালেগ ও অবুঝ উভয় ধরনের শিশুকে মসজিদে নেওয়ার বিবরণ পাওয়া যায়। আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজে এক শিশুর কান্না শুনলেন, যাকে তার মা নিয়ে এসেছিল; ফলে তিনি তার কিরাত ছোট করলেন বা ছোট সুরা পড়লেন। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৪৭০)।

সুনানে নাসায়ির অপর বর্ণনায় পাওয়া যায়, হাসান ও হুসাইন (রা.)-কে দেখে রাসুলুল্লাহ (সা.) মিম্বার থেকে নেমে আসেন। (নাসায়ি, হাদিস : ৫০)

তবে ইসলামী আইনজ্ঞরা বলেন, শিশু বালেগ হওয়া বা তার বয়স সাত বছর হওয়ার আগে মসজিদে না নেওয়া উত্তম। কেননা এতে অভিভাবক ও অন্যান্য মুসল্লির নামাজে সমস্যা তৈরি হতে পারে।

 

৪. হাতে-কলমে নামাজ শিক্ষা দেওয়া : সন্তান সাত বছর বয়সে উপনীত হলে তাকে হাতে-কলমে নামাজ শিক্ষা দেবে মা-বাবা। রাসুলুল্লাহ (সা.) সাহাবিদের হাতে-কলমে নামাজ শিক্ষা দিতেন। তিনি বলেন, ‘তোমরা আমাকে যেভাবে নামাজ আদায় করতে দেখো, সেভাবে নামাজ আদায় করো।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৬০০০৮)

 

৫. নামাজের জন্য পুরস্কার দেওয়া : সন্তান যেন নামাজের প্রতি যত্নবান হয়; এ জন্য তাকে পুরস্কার দেওয়া যেতে পারে। ফজরের নামাজের জন্য উঠলে, মসজিদে নামাজের জামাতে হাজির হলে, নামাজের জন্য প্রয়োজনীয় দোয়া, তাসবিহ ও সুরা মুখস্থ করলে তাকে পুরস্কৃত করা যেতে পারে। এ ধরনের উৎসাহমূলক পুরস্কার প্রদানে ইসলাম উৎসাহিত করে। সম্প্রতি তুরস্কসহ বিভিন্ন দেশে এই পদ্ধতি অবলম্বন করে বেশ সাড়া পাওয়া গেছে।

 

৬. নামাজের গুরুত্ব তুলে ধরা : সন্তানের সামনে নামাজের গুরুত্ব তুলে ধরা প্রয়োজন। ইসলামী শরিয়তে নামাজের গুরুত্ব, নামাজ আদায়ের সুফল, নামাজ না পড়ার কুফল, শাস্তি ইত্যাদি বর্ণনা করা যেতে পারে। যেমন—রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘অন্ধকারে মসজিদে গমনকারীর জন্য কিয়ামতের দিন পূর্ণাঙ্গ আলো লাভের সুসংবাদ দাও।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৫৬১)

 

৭. নামাজ সম্পর্কিত ঘটনা শোনানো : নামাজ কিভাবে ফরজ হলো, রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজের প্রতি কতটা যত্নবান ছিলেন, সাহাবিরা যুদ্ধের ময়দানেও কিভাবে নামাজ আদায় করেছিলেন এবং বুজুর্গ আলেমরা নামাজের মাধ্যমে কিভাবে জীবনের বিভিন্ন সংকট মোকাবেলা করেছেন—সেসব ঘটনা শিশুদের শোনালে তারা নামাজে উৎসাহী হবে।

 

৮. নামাজের জন্য জবাবদিহি : সন্তান ঠিকমতো নামাজ পড়ছে কি না সেদিকেও মা-বাবাকে লক্ষ রাখতে হবে এবং নামাজে অলসতা করলে জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে। আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমি আমার খালা মায়মুনার কাছে রাতে অবস্থান করছিলাম। সন্ধ্যার পর রাসুলুল্লাহ (সা.) এসে জিজ্ঞেস করলেন, এই শিশু কি নামাজ পড়েছে? আমি বললাম, হ্যাঁ।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ১৩৫৬)

 

৯. প্রয়োজনে শাস্তি দেওয়া : মা-বাবা ১০ বছর বয়স পর্যন্ত সন্তানকে উৎসাহ ও মৃদু শাসনের মাধ্যমে নামাজে অভ্যস্ত করার চেষ্টা করবে। ১০ বছর পূর্ণ হওয়ার পরও তারা নামাজে অবহেলা করলে তাদের প্রতি কঠোর হবে এবং প্রয়োজনে শাস্তি দেবে। মহানবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা তোমাদের সন্তানদের সাত বছর বয়সে নামাজের নির্দেশ দাও। তাদের বয়স ১০ বছর হওয়ার পর নামাজের জন্য প্রহার করো এবং তাদের বিছানা পৃথক করে দাও।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৯৫)

 

১০. নামাজি হওয়ার জন্য দোয়া করা : সন্তান যেন নামাজের প্রতি যত্নবান হয়—এ জন্য মা-বাবা দোয়া করবে। কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে আমার প্রতিপালক! আমাকে নামাজ কায়েমকারী করুন এবং আমার বংশধরদের মধ্যে থেকেও। হে আমার প্রতিপালক! আমার প্রার্থনা কবুল করুন।’ (সুরা : ইবরাহিম, আয়াত : ৪০)

 

সন্তানকে নামাজে অভ্যস্ত করার পুরস্কার

যারা সন্তানকে নামাজের নির্দেশ দেবে এবং তাদের নামাজে অভ্যস্ত করার চেষ্টা করবে, তাদের জন্য সবচেয়ে বড় পুরস্কার আল্লাহর সন্তুষ্টি। আল্লাহ তাআলা কোরআনে ইসমাইল (আ.)-এর প্রশংসা করে বলেছেন, ‘সে তার পরিবারকে নামাজ ও জাকাতের নির্দেশ দিত এবং সে ছিল আল্লাহর সন্তোষভাজন বান্দা।’ (সুরা : মারিয়াম, আয়াত : ৫৫)

এই আয়াতের ব্যাখ্যায় আল্লামা ইবনে কাসির (রা.) বলেন, ‘আল্লাহর আনুগত্যে অবিচলতা ও পরিবারকে তার নির্দেশ দেওয়ার কারণেই আল্লাহ এই উচ্চতর প্রশংসা করেছেন।’

 

সন্তানের নামাজের প্রতি উদাসীনতার ফল

আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহ.) বলেন, ‘যে বড় ব্যক্তির অধীনে কোনো ছোট মানুষ থাকে, হোক সে মালিকানাধীন দাস বা এতিম অথবা নিজের সন্তান এবং সে যদি ছোটকে নামাজের নির্দেশ না দেয়, তবে তাকে শাস্তির মুখোমুখি করা হবে এবং কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে। কেননা সে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের অবাধ্য হয়েছে।’ (আল ফাতাওয়াল কুবরা : ২/৩২)

এ বিভাগের আরো সংবাদ